আদালত সূত্র জানায়, বিচারিক আদালতের রায়সহ মামলার যাবতীয় নথিপত্র গত ৮ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় পৌঁছে, যা একটি ক্রমিকে ডেথ রেফারেন্স হিসেবে সংশ্লিষ্ট শাখায় নথিভুক্ত হয়। আইন অনুসারে কোনো আসামির মৃত্যুদণ্ড হলে তা কার্যকর করতে হাইকোর্টের অনুমোদন লাগে। এটি ডেথ রেফারেন্স মামলা হিসেবে পরিচিত। ডেথ রেফারেন্স শুনানির পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে প্রস্তুত করতে হয় পেপারবুক (মামলার বৃত্তান্ত)। এরপর এটি শুনানির জন্য হাইকোর্টের তালিকায় আসবে। সিনহা খুনের এই মামলায় এখনো পেপারবুক প্রস্তুত হয়নি।

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান গতকাল মুঠোফোনে বলেন, ‘রায়ের নথির যাচাই-বাছাই কাজ চলছে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘পেপারবুক প্রস্তুতের আগে কিছু আনুষঙ্গিক কাজ আছে। এগুলো চলছে।’

২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সিনহা মো. রাশেদ খান। সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বলেন, ‘আদালতের প্রতি আমাদের সম্মান আছে। যাঁদের মৃত্যুদণ্ড হয়েছে, সেই রায় যেন কার্যকর হয়।’ সিনহার পরিবারে চূড়ান্ত সন্তুষ্টি এখনো আসেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘দুজনের মৃত্যুদণ্ড যেদিন কার্যকর হবে, সেদিন চূড়ান্ত সন্তুষ্টি প্রকাশ করব।’

সিনহার বৃদ্ধ মা নাসিমা আক্তারও আশায় বুক বেঁধে আছেন রায় কার্যকরের। তিনি বলেন, ‘রায় কার্যকর হলে এটি দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে মানুষের জন্য।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন