বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বার কাউন্সিল আদেশ ১৯৭২–এর ৬(৩) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সৈয়দ রেজাউর রহমানকে বার কাউন্সিলের ভাইস চেযারম্যান ও ১১(বি) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বার কাউন্সিলের এনরোলমেন্ট কমিটির সদস্য নির্বাচিত করা হয়েছে। সভায় বার কাউন্সিল আদেশ ১৯৭২–এর ১১(১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী তিনটি স্ট্যান্ডিং কমিটির মধ্যে মোখলেসুর রহমান বাদলকে এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান, রবিউল আলম বুদুকে ফাইন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান ও আবদুল বাতেনকে লিগ্যাল এডুকেশন কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বার কাউন্সিল বিধি ৭৫(এ) অনুযায়ী একরামুল হককে ল রিফর্ম কমিটির, এ এফ এম মো. রুহুল আনাম চৌধুরীকে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড লিগ্যাল এইড কমিটির, আনিস উদ্দিন আহমেদ শহিদকে হাউস কমিটির, মো. জালাল উদ্দিন খানকে রিলিফ কমিটির, মো. আবদুর রহমানকে রোল অ্যান্ড পাবলিকেশনস কমিটির এবং মোহাম্মদ সাঈদ আহমেদকে কমপ্লেইন্ট অ্যান্ড ভিজিলেন্স কমিটির চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়েছে।

তিন বছর পর বার কাউন্সিল নির্বাচন হয়। বার কাউন্সিল নির্বাচনে ১৪টি পদ বা আসনে ভোট হয়। এর মধ্যে সাধারণ আসনে (দেশজুড়ে) সাতজন ও সাতটি অঞ্চলভিত্তিক আইনজীবী সমিতির সদস্যদের মধ্য থেকে একজন করে আরও সাতজন নির্বাচিত হয়ে থাকেন। সরাসরি ভোটে নির্বাচিত ১৪ সদস্যের ভোটে নির্বাচিত হন বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান। অ্যাটর্নি জেনারেল পদাধিকারবলে কাউন্সিলের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। এবারের নির্বাচনে (২০২২) নিরঙ্কুশ জয় পান আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা। ১৪টি আসনের বিপরীতে ১০টিতে আওয়ামীপন্থী ও ৪টি আসনে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা জয় পান।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন