অভিযুক্ত দুজন হলেন সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পাওয়া আব্দুল্লাহ আল মামুন ও পোলিং কর্মকর্তা শারমিন আক্তার। দুজনই আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মো. ইসমাইল হোসেনের প্রচারণায় অংশ নেন। এ নিয়ে অভিযোগ পাওয়ার পর ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

আগামী বুধবার ফটিকছড়ি পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে মেয়র পদে তিনজন প্রার্থী রয়েছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. কামরুল আলম বলেন, ‘নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত দুই কর্মকর্তা প্রার্থীর প্রচারণায় অংশগ্রহণের অভিযোগ পেয়েছি। এটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। তাঁদের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।’

নির্বাচন কমিশনের কারণ দর্শানোর চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ‘পৌরসভার সাধারণ নির্বাচন উপলক্ষে আপনাকে ভোট গ্রহণকারী কর্মকর্তার দায়িত্ব দেওয়া হয়। আপনি ইতিমধ্যে প্রশিক্ষণও সম্পন্ন করেছেন। ভোট কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে আপনি মেয়র প্রার্থী মো. ইসমাইল হোসেনের পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছেন, যা পৌরসভা নির্বাচন বিধিমালা ২০১৫-এর বিধি-২২ অনুসারে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এ অবস্থায় কেন আপনার বিরুদ্ধে স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) নির্বাচন বিধিমালা, ২০১০; নির্বাচন কর্মকর্তা (বিশেষ বিধান) আইন, ১৯৯১ (১৯৯১ সনের ১৩ নম্বর আইন) এবং সংশ্লিষ্ট আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, তা আগামী ছয় ঘণ্টার মধ্যে উপস্থিত হয়ে লিখিত আকারে প্রদানের জন্য বলা হচ্ছে।’