সাইফুল ইসলামকে লঘুদণ্ড দিয়ে ২৭ অক্টোবর প্রজ্ঞাপন জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এতে বলা হয়, ঘর নির্মাণের অনিয়ম ও ত্রুটির বিষয়ে সরেজমিন তদন্ত করার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসককে (রাজস্ব) আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল। তদন্তে ভূমি ও গৃহহীন ব্যক্তিদের পুনর্বাসনের জন্য আখাউড়া উপজেলায় দ্বিতীয় পর্যায়ের নির্মাণাধীন ঘরে নির্ধারিত মাপের চেয়ে নিম্ন মাপের রড, বেশি দূরত্বে রিং স্থাপন, রডের রিংয়ের পরিবর্তে তারের রিং ব্যবহার–সংক্রান্ত বিভিন্ন অনিয়ম ও ত্রুটি প্রমাণিত হয়। এ ছাড়া নির্মাণের ক্ষেত্রে আরও বেশ কিছু অনিয়ম দেখতে পায় তদন্ত কমিটি।

পরে এর ভিত্তিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় অভিযুক্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করে। ব্যক্তিগত শুনানিতে অভিযুক্ত কর্মকর্তা দাবি করেন, তিনি তাঁর দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করার চেষ্টা করেছেন। তবে যে অনিয়ম বা ভুল পাওয়া গেছে, তা তাঁর অনাকাঙ্ক্ষিত ভুল। তিনি ভুলত্রুটি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখে দায় থেকে অব্যাহতি চান।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সব বিষয় পর্যালোচনায় অভিযুক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আইনসংগত আদেশ অমান্যকরণ এবং কর্তব্যে অবহেলার প্রমাণ পাওয়া যায়, যা সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালার পরিপন্থী। এ জন্য তিনি দণ্ড পাওয়ার যোগ্য। তবে সাইফুল ইসলাম নবীন কর্মকর্তা হওয়ায় এবং চাকরি জীবনের অভিজ্ঞতা কম থাকায় অসদাচরণের জন্য দোষী সাব্যস্ত করে তাঁকে তিরস্কারসূচক লঘুদণ্ড দেওয়া হয়।