এ ক্ষয়ক্ষতি পোষাতে সরকারের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত বন্যার্ত মানুষকে ১৭ কোটি ২০ লাখ টাকা নগদ সহায়তা দেওয়া হয়েছে। এর সঙ্গে ১৩ হাজার টন চাল, ১ লাখ ৬৫ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার ও আট হাজার বান্ডিল টিন দেওয়া হয়েছে। কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের বীজ, সারসহ নানা ধরনের কৃষি উপকরণ সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।

জানতে চাইলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘হঠাৎ নামা বন্যায় দেশের হাওর এলাকায় অভাবনীয় ক্ষতি হয়েছে। আমরা সেই ক্ষতি মোকাবিলায় সরকারের অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও উন্নয়ন সহযোগীদের সহায়তা নিয়ে আলোচনা করব।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বন্যায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত জেলা সুনামগঞ্জ। ক্ষতিগ্রস্ত অন্য জেলাগুলো হচ্ছে সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ময়মনসিংহ ও শেরপুর জেলা। সাধারণত উজান থেকে আসা ঢলের মাধ্যমে সৃষ্টি হওয়া এ বন্যা তিন থেকে পাঁচ দিন স্থায়ী হয়ে থাকে। কিন্তু এ বন্যা প্রায় দুই সপ্তাহ স্থায়ী ছিল।

জানতে চাইলে বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাকের চেয়ারম্যান ও অর্থনীতিবিদ হোসেন জিল্লুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, প্রাকৃতিক নানা কারণে বাংলাদেশে প্রায় প্রতিবছর কমবেশি বন্যা হয়। তবে এবারের বন্যার সবচেয়ে নেতিবাচক দিক হচ্ছে হাওর এলাকার জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক দলের কর্মী এবং সামাজিক গোষ্ঠীগুলো বন্যার্তদের সহায়তায় খুব বেশি সক্রিয় ছিল না।

বন্যাসহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় সরকারের আমলা ও স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তাদের মাধ্যমে সব কাজ করতে হবে, এমন মানসিকতা দূর করে সামাজিক শক্তিগুলোকে কাজে লাগালে এ ধরনের বন্যায় ক্ষয়ক্ষতি দ্রুত মোকাবিলা করা সম্ভব।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন