বাদী পক্ষের আইনজীবী আল মামুন রাসেল প্রথম আলোকে বলেন, মামলা নেওয়ার আবেদন খারিজ আদেশ চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে আবেদন করা হবে। শিমু আহমেদ নামের একজন শিক্ষার্থী আদালতে নালিশি মামলা নেওয়ার এ আবেদন করেছিলেন।

মামলায় যে পাঁচ শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে, তাঁরা হলেন ঝিনাইদহের ডা. সাইফুল ইসলাম ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক প্রশান্ত কুমার পাল, নড়াইলের সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের সহযোগী অধ্যাপক সৈয়দ তাজউদ্দীন, সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মো. শফিকুর রহমান, নড়াইল মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের সহকারী অধ্যাপক শ্যামল কুমার ঘোষ ও কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা আদর্শ কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. রেজাউল করিম।

মামলায় অভিযোগ আনা হয়, উচ্চমাধ্যমিকের ওই প্রশ্নপত্রে ইসলাম ধর্মকে হেয়প্রতিপন্ন করা হয়েছে।