৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসির বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে একটি প্রশ্নের উদ্দীপক (সৃজনশীল প্রশ্নের অংশ) হিসেবে এমন বিষয় বেছে নেওয়া হয়, যা খুবই সংবেদনশীল। সেটা সাম্প্রদায়িক মনোভঙ্গি উসকে দিতে পারে বলে অনেকে মনে করছেন। এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়।

বিষয়টি জানাজানির পর ওই বিতর্কিত প্রশ্ন প্রণয়নকারী ও চার পরিশোধনকারীকে (মডারেটর) চিহ্নিত করা হয়। তাঁরা সবাই যশোর শিক্ষা বোর্ডের অধীন বিভিন্ন জেলার কলেজের শিক্ষক। এর মধ্যে প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করেছিলেন ঝিনাইদহের মহেশপুরের ডা. সাইফুল ইসলাম ডিগ্রি কলেজের সহকারী অধ্যাপক প্রশান্ত কুমার পাল। আর চার পরিশোধনকারী হলেন নড়াইলের সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের সহযোগী অধ্যাপক সৈয়দ তাজউদ্দিন, সাতক্ষীরা সরকারি মহিলা কলেজের সহযোগী অধ্যাপক শফিকুর রহমান, নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের সহকারী অধ্যাপক শ্যামল কুমার ঘোষ ও কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা আদর্শ কলেজের সহকারী অধ্যাপক রেজাউল করিম।

এরপর ব্যবস্থা নেওয়ার বিষয়ে যশোর শিক্ষা বোর্ড তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছিল। ওই কমিটি যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের কাছে প্রতিবেদন জমা দেয়। পরে চেয়ারম্যান ঢাকায় প্রতিবেদন পাঠান।