আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ তরিফুল নেওয়াজ কবির প্রথম আলোকে জানান, তাপমাত্রা ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে উঠলে তাপপ্রবাহ সৃষ্টি হয়। দেশে গরম বেশি না। তাপপ্রবাহ যেটা আছে, তা ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে, যাকে বলা হয় মৃদু তাপপ্রবাহ। কিন্তু মানুষের মধ্যে গরম লাগার অনুভূতি বেশি হচ্ছে মূলত বাতাসে আর্দ্রতা থাকার কারণে। এ ছাড়া বর্ষায় কয়েক দিন বৃষ্টি বেশি হলে তাপমাত্রা কমে যায়। এখন কিছু জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টি হলেও সেভাবে কিন্তু বৃষ্টি হচ্ছে না। সে কারণে তাপমাত্রা কমছে না। ১৬ বা ১৭ জুলাইয়ের আগে এ অবস্থা পরিবর্তনের সম্ভাবনা খুব কম। তবে এরপর বৃষ্টিপাতের প্রবণতা ধীরে ধীরে বাড়বে বলেও মনে করেন এ আবহাওয়াবিদ।

মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশে দুর্বলভাবে অবস্থান করছে। সে কারণে বৃষ্টি কম হচ্ছে বলে প্রথম আলোকে জানান আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ আফরোজা সুলতানা।

গরম বেশি অনুভূত হওয়ার আরেকটি ব্যাখ্যা দিয়েছেন আবহাওয়াবিদ শাহনাজ সুলতানা। তিনি প্রথম আলোকে জানান, মৌসুমি বায়ু আসে দক্ষিণ দিক থেকে। সেখানে সমুদ্র পৃষ্ঠের ওপরের অংশে তাপমাত্রা বেশি থাকে। ফলে ওই দিক থেকে বাতাস এলেও তা গরম থাকে। ফলে বাতাসও পাওয়া যায়, আবার গরমও অনুভূত হয়।

গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে রাজশাহীতে, ৩৮ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ ছাড়া ঢাকায় ৩৬, টাঙ্গাইলে ৩৬.২, সিলেটে ৩৭.৩, শ্রীমঙ্গলে ৩৭.২, ঈশ্বরদীতে ৩৬.৫, বগুড়ায় ৩৬.৫, সিরাজগঞ্জের তাড়াশে ৩৬, রংপুরে ৩৬.৫, দিনাজপুরে ৩৭.৪ ও সৈয়দপুরে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। দেশের বাকি অঞ্চলগুলোর তাপমাত্রা ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রেকর্ড হয়েছে।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, আগামী তিন দিন পর দেশে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বাড়তে পারে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন