যুক্তরাষ্ট্রে সরকারি সরবরাহব্যবস্থার পানিতে আর্সেনিকের মাত্রা পর্যবেক্ষণ করা হয়। কিন্তু ব্যক্তিমালিকানাধীন পানির উৎসগুলো নজরদারির বাইরে। দেশটির ১৪ শতাংশ মানুষ ব্যক্তিমালিকানাধীন উৎস থেকে পানি ব্যবহার করে। সেই কারণে যুক্তরাষ্ট্রে এ বিষয়ে সমন্বিত তথ্য-উপাত্তের ঘাটতি আছে।

বাংলাদেশের প্রায় সব জেলায় আর্সেনিকের দূষণ আছে। এক দশক আগেও বলা হতো, আর্সেনিক দূষণ বাংলাদেশের অন্যতম জনস্বাস্থ্য সমস্যা। দেশের বিপুলসংখ্যক নলকূপের পানিতে সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি আর্সেনিক শনাক্ত হয়। সমস্যাটি অনেকটা কমে এলেও তা একেবারে শেষ হয়ে যায়নি। অন্যদিকে দেশে কম ওজন নিয়ে শিশু জন্মানোর হারও অনেক বেশি।

পরিসংখ্যান ব্যুরো ও জাতিসংঘ শিশু তহবিল ইউনিসেফের তথ্য বলছে, প্রতি ১০০টি শিশুর মধ্যে ২৩টি শিশু কম ওজন নিয়ে জন্মায়। আর্সেনিক দূষণ ও শিশুর বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশের সম্পর্ক নিয়ে গবেষণা বাংলাদেশে হয়েছে। তাতে দেখা গেছে, দূষণের শিকার শিশুদের বিকাশ তুলনামূলকভাবে কম হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকেরা আর্সেনিকের প্রভাব নির্ণয়ে যান্ত্রিক মডেল ব্যবহার করেন। এ ক্ষেত্রে তাঁরা যুক্তরাষ্ট্রের গ্রাম এলাকার ব্যক্তিমালিকানাধীন উৎসের পানিতে থাকা আর্সেনিকের মাত্রা এবং সংশ্লিষ্ট এলাকায় জন্ম নেওয়া শিশুদের জন্মকালীন ওজন পর্যালোচনা করেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) বলছে, এক লিটার পানিতে ৫ মাইক্রোগ্রামের কম আর্সেনিক থাকলে তা সহনীয়। অর্থাৎ তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়। কিন্তু ৫ গ্রামের বেশি হলে তা দূষিত হিসেবে বিবেচিত হয়।

গবেষকেরা দেখেছেন, যেখানে এক লিটার পানিতে আর্সেনিকের পরিমাণ ৫ মাইক্রোগ্রামের বেশি, সেখানে শিশুদের জন্মকালীন ওজন শিশুদের জন্মকালীন গড় ওজনের চেয়ে ১ দশমিক ৮ গ্রাম কম। আবার যেখানে এক লিটার পানিতে আর্সেনিকের পরিমাণ ১০ মাইক্রোগ্রামের বেশি, সেখানে শিশুদের জন্মকালীন ওজন জন্মকালীন গড় ওজনের চেয়ে ২ দশমিক ৮ গ্রাম কম। গবেষকেরা বলছেন, গবেষণার একটি দুর্বলতা হচ্ছে পরিমাণ মাত্রা ব্যক্তিপর্যায়ে মূল্যায়ন করা হয়নি।

আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ওয়াটারএইডের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের পরিচালক জনস্বাস্থ্যবিদ খায়রুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় গবেষণা করে দেখেছেন, আর্সেনিক দূষণের শিকার শিশুদের বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশ কম হয়। আর্সেনিক দূষণের কারণে শিশুদের জন্ম–ওজন কম হতে পারে, তবে এ নিয়ে আরও গবেষণা হওয়ার দরকার।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন