বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অর্থ মন্ত্রণালয় আজ এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিসচিব এন এম জিয়াউল আলম এবং বিসিসির নির্বাহী পরিচালক মো. আবদুল মান্নান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন আইডিইএর পরিচালক মো. আবদুর রাকিব।

অর্থমন্ত্রী বলেন, তিনি বিশ্বাস করেন, তরুণেরা একদিন সফল এবং সার্থক মানুষে পরিণত হয়ে দেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ করে মাতৃভূমিকে সারা বিশ্বের সামনে তুলে ধরবে। আর বিগ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরাই একদিন গুগল, টেসলা, আমাজনের মতো বিশাল কোম্পানিতে পরিণত হবে।

মুজিব জন্মশতবর্ষে বিগ আয়োজনে প্রাথমিক পর্যায়ে বাংলাদেশসহ বিশ্বের ৫৭ দেশ থেকে সাত হাজারের বেশি উদ্যোক্তা ও উদ্ভাবকের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ প্রমাণ করে, বাংলাদেশ আজ তথ্যপ্রযুক্তি (আইসিটি) খাতে সারা বিশ্বে একটি বিশ্বাসের জায়গা করে নিয়েছে। দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তাদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে নতুন উদ্ভাবন বা উদ্ভাবনী উদ্যোগ খুঁজে বের করতে আইডিইএ প্রকল্প বিশেষ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ই-কমার্স জগতের অন্যতম প্রধান প্রতিষ্ঠান শুধু আমাজনই ঘণ্টায় ২৫ লাখ মার্কিন ডলারের সমান নিট মুনাফা অর্জন করে, যা অবিশ্বাস্য। ফেসবুকের বেতনভুক্ত কোনো সাংবাদিক বা কনটেন্ট নির্মাতাই নেই। বিশ্বের বৃহত্তম হোটেল চেইন এয়ারবিএনবির কোনো হোটেল নেই। বিশ্বের বৃহত্তম ট্যাক্সি কোম্পানি উবার একটিও ট্যাক্সির মালিক নয়। এসব প্রযুক্তি কোম্পানি সেবা খাতে বিপ্লব ঘটিয়েছে। তারা ঐতিহ্যবাহী অনেক কোম্পানির বাজার দখল করে নিয়েছে শুধু তারুণ্যের বুদ্ধিবৃত্তিক উদ্ভাবনী শক্তির মাধ্যমে।

দেশে বর্তমানে দুই হাজার পাঁচ শতাধিক উদ্যোক্তা কাজ করছে এবং অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমাদের জনসংখ্যার এক-তৃতীয়াংশ যুবসমাজ। তাদের পক্ষেই সম্ভব সমস্যাকে সম্ভাবনায় পরিণত করা। তরুণদের সহযোগিতা করতেই দুই অর্থবছর ধরে ১০০ কোটি টাকা করে বরাদ্দ রাখা হচ্ছে।’

তরুণ উদ্যোক্তাদের অনুপ্রাণিত করতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের অধীনে উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমী প্রতিষ্ঠাকরণ প্রকল্প ‘বঙ্গবন্ধু ইনোভেশন গ্র্যান্ট (বিগ) ২০২১’ আয়োজন করে।

আন্তর্জাতিক এই আয়োজনে ১৪২টি দেশে ক্যাম্পেইন শেষে বাংলাদেশসহ বিশ্বের ৫৭টি দেশ থেকে ৭ হাজারের বেশি উদ্যোক্তা এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য আবেদন করে। এই প্রতিযোগিতায় সেরা একটি উদ্যোক্তা হিসেবে ‘ওপেনরিফ্যাক্টরি’ ১ লাখ মার্কিন ডলার পুরস্কার পায়। এ ছাড়া দেশীয় উদ্যোক্তাদের নিয়ে অনুষ্ঠিত রিয়্যালিটি শো থেকে নির্বাচিত ২৬টি এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ের সেরা ১০টি উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান ১০ লাখ টাকা করে পেয়েছে।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন