বিজ্ঞাপন

বিকাশ এবারই প্রথম ঈদ সামনে রেখে মোবাইল অ্যাপে ‘ঈদ সালামি’ নামে একটি অপশন চালু করেছে। প্রতিষ্ঠানটির অ্যাপ ব্যবহারকারী কোনো গ্রাহক চাইলে প্রিয়জনের কাছে ঈদ সালামির টাকা পাঠাতে পারছেন। যাকে পাঠানো হচ্ছে তিনিও জানতে পারছেন টাকাটি কোন উদ্দেশ্যে পাঠানো হয়েছে।

বিকাশের যোগাযোগ বিভাগের প্রধান শামসুদ্দিন হায়দার বলেন, ঈদকে কেন্দ্র করে মানুষের হাতে বাড়তি কিছু অর্থ আসে। বছরের অন্যান্য সময়ের চেয়ে এ সময়টাতে মানুষ বাড়তি খরচও করেন। করোনার কারণে এবার আর্থিক লেনদেনে এমএফএসের ব্যবহার বেড়েছে।

এদিকে ডাক বিভাগের এমএফএস সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান নগদের মাধ্যমে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত মাত্র ৯ ঘণ্টায় ৬৭৬ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। যেখানে গত ১০ মে পর্যন্ত দৈনিক গড় লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৫৩৩ কোটি টাকা।

জানতে চাইলে নগদের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর আহমেদ বলেন, ‘মোবাইলে আর্থিক সেবা এখন মানুষের প্রতিদিনের জীবনযাপনের অংশ হয়ে গেছে। ঈদের আগে মানুষের টাকা লেনদেন অনেক সময় জরুরি হয়ে পড়ে। যার প্রতিফলন গত কয়েক দিনে আমরা দেখছি।’

দেশে বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংকের নিবন্ধিত ১৫টি এমএফএস প্রতিষ্ঠান আর্থিক সেবা দিচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের নিবন্ধনের বাইরে ডাক বিভাগের প্রতিষ্ঠান নগদ এ সেবার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে। এমএফএস বাজারের ৭০ শতাংশই বিকাশের দখলে। বর্তমানে লেনদেনের দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে নগদ। এমএফএস সেবার বাজারে বিকাশ ও নগদের পরের অবস্থানে রয়েছে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের এমএফএস সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান রকেট। প্রতিষ্ঠানটির দৈনিক গড় লেনদেন কয়েক দিন আগে ৫০০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। তবে রকেটের মাধ্যমে গত ২৪ ঘণ্টায় লেনদেন কতটা বেড়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন