বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

মাতৃভান্ডারে আধা ঘণ্টা

কুমিল্লার মনোহরপুরের মাতৃভান্ডার কেন এত জনপ্রিয়, রসমালাইপ্রেমীরা কেন ছোটেন মাতৃভান্ডারে, তা দেখতে গত ২৮ অক্টোবর যাই মাতৃভান্ডারের সামনে। সকাল ১০টা ২০ মিনিট থেকে ১০টা ৫০ মিনিট পর্যন্ত দেখলাম মাতৃভান্ডারের কারবার। ফুটপাতে দাঁড়িয়ে দেখলাম তাদের ব্যবসায়িক কার্যক্রম। ওই ৩০ মিনিটে মোট ৪৬ জন ক্রেতা ঢুকেছেন। তাঁদের প্রায় সবাই এক থেকে চার কেজি পর্যন্ত রসমালাই কিনেছেন। মাতৃভান্ডারে প্রবেশপথের ডান পাশে ক্যাশ কাউন্টার। ক্যাশ কাউন্টারের বিপরীতে র‌্যাকে রসমালাই, প্যারাসহ বিভিন্ন মিষ্টান্ন সাজানো আছে। র‌্যাকের পেছনে ৮ থেকে ১০ জন কর্মী দাঁড়িয়ে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী রসমালাই সরবরাহ করছেন। আর পাশের টেবিলে এক থেকে দুই কেজি ওজনের রসমালাইয়ের প্যাকেট রাখা আছে। এসব প্যাকেট চলে যাচ্ছে ক্রেতার হাতে। দোকানের পেছনের কারখানা থেকে আসছে রসমালাইয়ের প্যাকেট। ক্রেতা ও বিক্রয়কর্মীর হাঁকডাক তো চলছেই। দামাদামির কোনো বালাই নেই। এক কেজি রসমালাই ২৮০ টাকা।

default-image

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মাতৃভান্ডারের সামনে কথা হলো কুমিল্লা শহরের চর্থা এলাকার মধ্যবয়সী মাসুদ পারভেজের সঙ্গে। তাঁর হাতে রসমালাইয়ের প্যাকেট। তিনি পেশায় ছোট ব্যবসায়ী। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, প্রতি সপ্তাহে অন্তত এক কেজি রসমালাই দুই মেয়ের জন্য নিয়ে যেতে হয়। মেয়েদের খুব পছন্দ রসমালাই। আর কুমিল্লার রসমালাই মানেই মাতৃভান্ডার। তাই প্রতি সপ্তাহে এখান থেকে রসমালাই কেনেন।

মাতৃভান্ডারের কারবার দেখার জন্য যখন দাঁড়িয়ে ছিলাম, তখন বেশ কয়েকটি অটোরিকশাযোগে এল দুধভর্তি প্লাস্টিকের ড্রাম। প্রতিটি ড্রামে কমপক্ষে ২০ লিটার দুধ। দুধের চালান আসার সঙ্গে সঙ্গে কারখানার কর্মীরা ব্যতিব্যস্ত হয়ে উঠলেন। পাঁচ থেকে ছয়জন কর্মী এসে দুধের ড্রাম কারখানায় ভেতরে নিয়ে যান। এর মধ্যেই চলছে বেচাকেনা। জানা গেছে, প্রতি দিন সকাল ও বিকেলে দুধের চালান আসে। অনেক সময় চাহিদা অনুযায়ী দুধের চালান না এলে ক্রেতাদের রসমালাই না নিয়েই মলিনমুখে ফিরে যেতে হয়।

বেলা পৌনে ১১টার দিকে দেখা গেল সেজেগুজে অটোরিকশায় করে মাতৃভান্ডারের সামনে এক পরিবার এল। পরিবারের কর্তা আবদুস সামাদ অনেকটা হাঁকডাক দিয়ে মাতৃভান্ডারে ঢুকলেন। চার কেজি রসমালাই নিলেন। আবদুস সামাদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘কুমিল্লার চান্দিনায় মেয়ের শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছি। রসমালাই না নিলে কি হয়?’ জানান, ৩৫ বছর ধরে তিনি মাতৃভান্ডার থেকে রসমালাই কেনেন।

কোথাও কোনো শাখা নেই

যেকোনো পণ্য জনপ্রিয় হলে উদ্যোক্তা ব্যবসা বাড়াতে উদ্যোগী হন। উৎপাদন বাড়িয়ে সারা দেশে শোরুম খোলেন। এটাই যেন ব্যবসার নিয়ম। কিন্তু এই নিয়মের পথে হাঁটেননি মাতৃভান্ডারের মালিক। কুমিল্লার শহরের মনোহরপুর ছাড়া মাতৃভান্ডারের আর কোনো শাখা বা শোরুম নেই।

কেন শাখা নেই, তা জানতে যোগাযোগ করা হয় মাতৃভান্ডারের স্বত্বাধিকারী অনির্বাণ সেনগুপ্তের সঙ্গে। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা সব সময় মান ধরে রাখতে চাই; ভোক্তারা যেন ঠকে না যান। এ ছাড়া মাতৃভান্ডারের শাখা বাড়ানো হলে ক্রেতার চাহিদা অনুযায়ী রসমালাই বানাতে পারব না। তাই আমরা একটি শাখা নিয়েই চলতে চাই।’ তবে প্রতিদিন কত কেজি রসমালাই বিক্রি হয় এবং কী পরিমাণ দুধ লাগে, তা জানতে চাইলে ব্যবসার গোপনীয়তার স্বার্থে প্রকাশ করেননি তিনি।

জানা গেছে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অঞ্চলে ‘মাতৃভান্ডার’ নামে ৭০টির বেশি দোকান আছে। কেউবা নামের আগে ছোট করে ‘আদি’, ‘নিউ’, ‘প্রসিদ্ধ’—এসব শব্দ জুড়ে দিয়েছেন। আর বিভ্রান্ত হন ক্রেতারা। কুমিল্লার বিখ্যাত রসমালাই মনে করে কেনেন তাঁরা। এভাবেই ভেজালের ভিড়ে যেন আসল রসমালাইয়ের স্বাদ উধাও।
মাতৃভান্ডারের বয়স ৯১ বছর। ১৯৩০ সালে অনির্বাণ সেনগুপ্তের দাদা ফণীন্দ্র সেন এই ব্যবসার শুরু করেছিলেন। প্রথম দিকে চা-নাশতা, সবই বিক্রি হতো। ধীরে ধীরে চাহিদা বেড়ে গেলে শুধু মিষ্টির দোকান হিসেবে হিসেবেই প্রতিষ্ঠা পায়। বিশেষ করে রসমালাইয়ের জন্য সারা দেশে সুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। স্বাধীনতার পর ফণীন্দ্র সেনের ছেলে শংকর সেনগুপ্ত মাতৃভান্ডারের দায়িত্ব নেন। ২০১৮ সালে তিনি মারা গেলে মাতৃভান্ডারের দায়িত্ব ছেলে অনির্বাণ সেনগুপ্তের হাতে পড়ে।

বর্তমানে ২২ থেকে ২৫ জন কর্মী আছেন। মাতৃভান্ডারের পেছনে কারখানা। সেখানে সারা দিন ১২ থেকে ১৫ জন রসমালাই, প্যারাসহ বিভিন্ন মিষ্টান্ন বানাতে ব্যস্ত থাকেন। দুধ থেকে রসমালাই বানাতে সাড়ে চার–পাঁচ ঘণ্টা সময় লাগে। দিনে দুবার রসমালাইয়ের উনুন জ্বলে। এভাবেই বংশপরম্পরায় মাতৃভান্ডার চলছে।

উদ্যোক্তা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন