বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আইডিএলসি-প্রথম আলো এসএমই পুরস্কার ২০২১ আয়োজন উপলক্ষে তরুণ উদ্যোক্তাদের নিয়ে এ বৈঠকের আয়োজন করে প্রথম আলো। বৈঠকে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রথম আলোর যুব কার্যক্রমের প্রধান মুনির হাসান। বৈঠকে উদ্যোক্তারা তাঁদের সমস্যা ও এগিয়ে যাওয়ার নানা গল্প তুলে ধরেন।

প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান বলেন, ‘আমরা তরুণ উদ্যোক্তাদের সম্ভাবনা ও সমস্যা তুলে আনতে চাই। আমরা জানি সমস্যা অনেক। তা সত্ত্বেও তরুণ উদ্যোক্তারা অর্থনীতিতে অবদান রাখছেন।’ তিনি বলেন, তরুণ উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করতে ও স্বীকৃতি দিতে আইডিএলসির সঙ্গে মিলে এসএমই পুরস্কার চালু করা হয়েছে। আশা করি, এই আয়োজন অব্যাহত থাকবে।

যেখানে আটকে যান তরুণ উদ্যোক্তারা

বৈঠকে তরুণ উদ্যোক্তা ও মুনলাইট পেট ফ্লেক্সের প্রধান নির্বাহী পরিচালক হাবিবুর রহমান বলেন, পণ্য রপ্তানি করে প্রণোদনার টাকা পেতে সংশ্লিষ্ট সমিতির সদস্য হতে হয়। সমিতির সদস্য না হলে প্রণোদনার টাকা মিলবে না। নতুন উদ্যোক্তা হিসেবে ওই সব সমিতির সদস্য হতে ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা দিতে হয়।

সরবরাহ পর্যায়ে উচ্চ হারে উৎসে কর কেটে রাখার সমস্যা তুলে ধরেন কারিগরের কর্ণধার তানিয়া ওয়াহাব। তিনি বলেন, দুই কোটি টাকার বেশি পণ্য বা সেবা সরবরাহ করলে ৭ শতাংশ অগ্রিম কর কেটে রাখা হয়। একজন ব্যবসায়ীর পক্ষে এক শ টাকার পণ্য বিক্রি করে ৭ শতাংশ মুনাফা করা এখন খুব কঠিন।

উইমেন ইন ই-কমার্সের সভাপতি নাসিমা আকতার বলেন, ব্যবসা করতে বিভিন্ন ধরনের কাগজপত্র লাগে। এসব কাগজপত্র তৈরি করতেই এক বছর সময় লেগে যায়। এত সময় লাগার কারণে নতুন উদ্যোক্তারা ব্যবসা করতে নিরুৎসাহিত হন।

* সমিতির নিবন্ধন ছাড়া রপ্তানির প্রণোদনা মেলে না। * ভ্যাটের নিবন্ধন নিতে হয়রানি * ঋণ পেতে নানা ধরনের কাগজপত্র লাগে। * তথ্যের অভাবে পিছিয়ে পড়েন উদ্যোক্তারা।

ব্যবসা শুরু করার ক্ষেত্রে বিশ্বাসযোগ্য তথ্যের অভাবও বড় অন্তরায় বলে মনে করেন এফ এম প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গাজী তৌহিদুর রহমান। তিনি বলেন, চাকরির বদলে তরুণেরা উদ্যোক্তা হতে চান। কিন্তু ব্যবসা শুরু করার জন্য কী কী করতে হবে, কী ধরনের কাগজপত্র লাগবে—এসব জানেন না। এক অফিস থেকে আরেক অফিসে ঘোরাঘুরি করেন। যদি এক জায়গায় সব তথ্য থাকত, তাহলে যাঁরা উদ্যোক্তা হতে চান, তাঁদের পথচলা সহজ হতো।

প্রাণিজ আমিষজাতীয় পণ্যের ব্যবসা করে ‘প্রোটিন মার্কেট’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সফিউল আলম বলেন, বাংলাদেশে ২০০ বর্গফুটের একটি স্পেসের জন্য ২০-৩০ হাজার টাকা ভাড়া গুনতে হয়। অথচ ভারতে একই পরিমাণ স্পেস ভাড়া মাত্র ছয় হাজার রুপি। এত ভাড়া দিয়ে এ দেশের উদ্যোক্তারা কীভাবে টিকে থাকবেন?

চিকিৎসাসেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান মেডিএইডারের সহপ্রতিষ্ঠাতা সাব্বির আহমেদ ভ্যাট কার্যালয়ে নিজের হয়রানির অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘ভ্যাট নিবন্ধনের জন্য আবেদন করে এক সপ্তাহ পরেও নিবন্ধন পাইনি। এক সপ্তাহ পরে হটলাইনে ফোন করলে বলা হয়, হটলাইন পরিচালনাকারীর সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। এরপর জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ভ্যাট কার্যালয়ে গিয়েও সমাধান পাইনি।’

তরুণ উদ্যোক্তাদের পরামর্শ দেয় শাহিনস হেল্পলাইন। প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা আমিনুল ইসলাম বলেন, একেক সমিতির সদস্য হতে লাখ টাকা পর্যন্ত মাশুল দিতে হয়। কিন্তু সবাই ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা। তাঁদের সদস্য হওয়ার মাশুল এক হওয়া উচিত।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন আইডিএলসির প্রধান বিপণন কর্মকর্তা জানে আলম, সরকারের আইডিয়া প্রকল্পের পরামর্শক আলাউল কবির প্রমুখ।

উদ্যোক্তা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন