বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি গঠন করেছিল সরকার। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়, রিজার্ভ চুরির ক্ষেত্র প্রস্তুত করে রেখেছিল বাংলাদেশ ব্যাংক নিজেই। নিরাপত্তাব্যবস্থা ছিল অরক্ষিত, সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা ছিলেন দায়িত্বহীন। আর চূড়ান্ত সর্বনাশ ঘটানো হয় আন্তর্জাতিক লেনদেনের নেটওয়ার্ক সুইফট সার্ভারের সঙ্গে স্থানীয় লেনদেনের নেটওয়ার্ক জুড়ে দিয়ে।

রিজার্ভ চুরির তিন বছর পর যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক সাউদার্ন ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে মামলা করে বাংলাদেশ। ২০১৯ সালের ৩১ জানুয়ারি দায়ের করা মামলায় ফিলিপাইনের পাঁচটি আর্থিক ও ক্যাসিনো প্রতিষ্ঠান, দেশটির ১২ জন, ৩ জন চীনা নাগরিকসহ মোট ২০ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে অভিযুক্ত করে বাংলাদেশ ব্যাংক। সেই আদালতে সব পক্ষ প্রয়োজনীয় নথিপত্র জমা দেয়। ২০২০ সালের ২০ মার্চ আদালত রায় দেন। রায়ে বলা হয়, যে উদ্দেশ্যে মামলাটি করা হয়েছে, তা ওই আদালতের এখতিয়ারাধীন না। তবে স্টেট আদালতে মামলা চলতে পারে বলে মত দেন ফেডারেল আদালত। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত বছরের ২৭ মে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট আদালতে মামলা করে বাংলাদেশ ব্যাংক। মামলায় একই ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে আসামি করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষে মামলার বিষয়ে যোগাযোগ করছে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। অর্থ উদ্ধারের পদক্ষেপ সম্পর্কে জানতে চাইলে ইউনিট প্রধান আবু হেনা মোহা. রাজী হাসান প্রথম আলোকে বলেন, ‘স্টেট কোর্টে মামলা চলছে। আসামিদের বিরুদ্ধে সমন জারি হয়েছে। আশা করছি দ্রুতই শুনানি হবে।’ অর্থ ফেরত পেতে আর কোনো প্রক্রিয়া চলছে কি না, জানতে চাইলে রাজী হাসান বলেন, ‘অন্য সব প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পরই মামলা হয়েছে। এখন মামলার মাধ্যমেই বিষয়টি নিষ্পত্তি হবে।’ ফলে টাকা উদ্ধারে এখন আদালতের ওপর ভরসা করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, রিজার্ভ চুরির ৬ কোটি ৬০ লাখ ডলারের মধ্যে ৫ কোটি ২০ লাখ ডলার নিয়ে ফিলিপাইনের আদালতে কমপক্ষে ১২টি মামলা চলমান। এর মধ্যে বড় অঙ্কের অর্থ জব্দও করে রেখেছেন দেশটির আদালত। তবে এসব মামলার অগ্রগতি খুবই মন্থর। ফলে ফিলিপাইনের মামলার মাধ্যমে টাকা আদায়ের কোনো সম্ভাবনা নেই বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা এ নিয়ে বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে মামলাটি নিষ্পত্তি করতে হবে, এটাই এখন একমাত্র পথ।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন