বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

মেলায় ঢাকা ও চট্টগ্রামের ৪৬টি প্রতিষ্ঠানের ৭১টি স্টল রয়েছে। আবাসন প্রতিষ্ঠান ছাড়াও ভবন নির্মাণসামগ্রী ও ঋণদাতা আর্থিক প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে। গতকাল দুপুরে মেলার উদ্বোধন করেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। রিহ্যাবের সভাপতি শামসুল আল আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম সিটি মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী, রিহ্যাবের সহসভাপতি কামাল মাহমুদ, চট্টগ্রাম কমিটির সভাপতি আবদুল কৈয়ূম চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে নসরুল হামিদ বলেন, ‘আগামীতে পরিকল্পিত শিল্প এলাকা ছাড়া বিদ্যুৎ ও গ্যাস-সংযোগ দেওয়া হবে না। সুতরাং যত্রতত্র বাণিজ্যিক স্থাপনা করবেন না।’

রিহ্যাব চট্টগ্রাম কমিটির সভাপতি আবদুল কৈয়ূম চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, ‘মেলার আগেই এ বছর আবাসন খাতে বিক্রির হার বিগত আট বছরের তুলনায় বেশি ছিল। ফলে এবারের মেলায় ফ্ল্যাট বুকিং ও বিক্রি প্রত্যাশা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছি।’ তিনি বলেন, এবার মেলায় যেসব প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়েছে, তাদের হাতে অন্তত ৮০০টি প্রায় প্রস্তুত ফ্ল্যাট রয়েছে।

চার দিনব্যাপী এই মেলা চলবে আগামী রোববার পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে এ মেলা। মেলায় একবার প্রবেশমূল্য রাখা হয়েছে ৫০ টাকা এবং মাল্টিপল টিকিটে চারবার প্রবেশ করা যাবে ১০০ টাকায়।

মেলায় অংশ নেওয়া আবাসন প্রতিষ্ঠান সিপিডিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইফতেখার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘মধ্যবিত্ত থেকে উচ্চবিত্ত শ্রেণির গ্রাহকদের কথা মাথায় রেখে প্রকল্প হাতে নিয়েছি আমরা। প্রতিটি প্রকল্পে সুযোগ-সুবিধার দিক থেকে নতুনত্ব আনা হয়েছে।’

মেলায় অংশ নেওয়া জুমাইরা হোল্ডিংসের হাতে অবশ্য প্রস্তুত ফ্ল্যাট নেই। মেলায় তারা আটটি নতুন অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্প তুলে ধরছে। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শাহজাহান প্রথম আলোকে জানান, তাঁদের সবই বিলাসবহুল প্রকল্প। প্রকল্প হাতে নেওয়ার পর বিক্রি করতে খুব বেগ পেতে হচ্ছে না।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন