গত বছরের শেষ ভাগ থেকে জ্বালানির মূল্য বেড়ে যাওয়ার পর থেকেই নিত্যপণ্যের দাম বাড়তে শুরু করে। এরপর চলতি বছরের মে মাসে হঠাৎ বেড়ে যায় সয়াবিনসহ ভোজ্যতেলের দাম। আশা করা হয়েছিল, বোরো মৌসুমে চালের দাম কম হবে। তবে বোরো মৌসুমের চাল বাজারে আসা শুরু করতেই দেশের প্রধান এই খাদ্যশস্যের দাম বাড়তে শুরু করে। ঢাকা, কুষ্টিয়া ও নওগাঁর পাইকারি বাজারে চালের দাম ধরনভেদে কেজিতে দুই থেকে পাঁচ টাকা বেড়ে যায়। এর প্রভাব পড়ে খুচরা বাজারেও।

এবার বোরো মৌসুমের শুরুতে হাওরে আগাম পানি এসে কিছু ধান নষ্ট হয়েছে। এ ছাড়া ঘূর্ণিঝড় অশনির কারণে সারা দেশে ব্যাপক বৃষ্টি পাকা ধানের ক্ষতি করেছে। ওদিকে রাশিয়া, ইউক্রেন ও ভারত থেকে বিশ্ববাজারে সরবরাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় গমের দাম বাড়ছে। এর প্রভাব পড়ছে বাংলাদেশের বাজারেও। বিশ্ববাজারে চালের দামও কিছুটা বাড়তি।

গত রোববার বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস) মে মাসের সার্বিক মূল্যস্ফীতির হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করে। সেখানে দেখা যায়, হঠাৎ মূল্যস্ফীতি ৭ শতাংশ পেরিয়ে গেছে। গত মে মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৪২ শতাংশ। গত এপ্রিলে এ হার ছিল ৬ দশমিক ২৯। এক মাসের ব্যবধানে মূল্যস্ফীতির এত বড় উল্লম্ফন গত কয়েক বছরে দেখা যায়নি।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন