বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার টুইটারে বাইডেন লিখেছেন, ‘আমেরিকান পরিবারদের জন্য তেল ও গ্যাসের দাম কমাতে এ পদক্ষেপের কথা আজ ঘোষণা করছি। আমেরিকাবাসীর জন্য কৌশলগত মজুত থেকে পাঁচ কোটি ব্যারেল তেল ছাড়বে জ্বালানি মন্ত্রণালয়, যাতে তেল ও গ্যাসের দাম কমানো যায়।’

বাইডেনের এ সিদ্ধান্তে আমেরিকার সাধারণ মানুষ স্বস্তি পাবেন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। গত সাত বছরের মধ্যে আমেরিকায় তেলের দাম এখন সর্বোচ্চ। আমেরিকান অটোমোবাইল অ্যাসোসিয়েশন জানিয়েছে, সোমবার ১ গ্যালন তেলের দাম ৩ দশমিক ৪০৯ ডলার ছুঁয়েছে। অথচ বছরখানেক আগেও এর দাম ছিল প্রতি গ্যালন ২ দশমিক ১১ ডলার। বাইডেনের এ ঘোষণার পর এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউস আরও প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, ‘তেলের দাম কমাতে প্রয়োজনে অতিরিক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

বাইডেনের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। বিনিয়োগকারীদের পরামর্শদাতা সংস্থা এগেন ক্যাপিটালের কর্ণধার জন কিলডাফের মতে, ‘তেলের দাম কমাতে এটি অত্যন্ত সময়োচিত পদক্ষেপ। শীতকালের আগে উৎপাদনের ঘাটতি মেটাতে অতিরিক্ত তেলের এই জোগান সহায়ক হবে।’

যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি জাপান, চীন ও ভারতের মতো বড় দেশগুলো বাজারে অতিরিক্ত তেলের জোগান দেবে বলে জানা গেছে। অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারের এই সময় তেলের দাম কমাতে এককাট্টা হয়েছে সবাই।

আমেরিকায় তেলের দাম নিম্নমুখী হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও বাংলাদেশে কবে সে সুদিন আসবে, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। গত অক্টোবরে বিশ্ববাজারে মূল্যবৃদ্ধির কারণে সরকার জ্বালানি তেলের দাম একলাফে ২৩ শতাংশ বাড়িয়ে দেয়। এর ফলে পরিবহনভাড়া বাড়ে ২৭ শতাংশ। এ নিয়ে দেশে আন্দোলন চলছে। তবে বিশ্ববাজারে দাম কমলেও বাংলাদেশ এখন কী করে, তাই দেখার বিষয়।

জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির কারণে ইতিমধ্যে বাজারে পণ্যের দাম অনেকটাই বেড়ে গেছে। এতে অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার ব্যাহত হবে বলেই মনে করেন বিশ্লেষকেরা।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন