‘ভাঙারিদের সঙ্গে ব্যবসা করতে হলে একদম তাঁদের সামনে যেতে হয়,’—বলেন জুয়েল। ‘আমি সে সময় শহরজুড়ে ভাঙারিদের খুঁজে বের করতাম, সেগুলা ভাঙানোর কাজ করতাম, রপ্তানির জন্য কাগজপত্র গোছানোর কাজ করতাম। সব মিলিয়ে দিনের ১৬ থেকে ১৮ ঘণ্টা কখন চলে যেত বুঝতেও পারতাম না।’

কাজ করতে করতে কাজে হাত পাকতে থাকল হাবিবুর রহমান জুয়েলের। ২০১৬ সাল পর্যন্ত দেশের পেট ফ্লেক্স রপ্তানিকারকদের মধ্যে অন্যতম হয়ে উঠলেন তিনি। বললেন, ‘এই ব্যবসাটা খুব সনাতনীভাবে হতো, শিক্ষিত বিক্রেতা ছিলেন না বললেই চলে। কিছু মধ্যস্থতাকারী ছিলেন, তাঁরা নানাভাবে ঠকাতেন। আমি নিজে ক্রেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতাম, চাহিদামাফিক পণ্য এনে দিতাম। এভাবে খুব দ্রুত আমি ওপরের দিকে উঠে যাই।’

এই ব্যবসাটা খুব সনাতনীভাবে হতো, শিক্ষিত বিক্রেতা ছিলেন না বললেই চলে। কিছু মধ্যস্থতাকারী ছিলেন, তাঁরা নানাভাবে ঠকাতেন। আমি নিজে ক্রেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতাম, চাহিদামাফিক পণ্য এনে দিতাম। এভাবে খুব দ্রুত আমি ওপরের দিকে উঠে যাই।
হাবিবুর রহমান জুয়েল

২০১৬ সালে ব্যবসায় ধস নামল। চীন সরকারিভাবে সিদ্ধান্ত নিল বিদেশ থেকে আর ফ্লেক্স কিনবে না। পথে নামার জোগাড় হাবিবুর রহমান জুয়েলের। তখন সত্যিই একটা অভাবনীয় ঘটনা ঘটল। চীনের যে প্রতিষ্ঠান তাঁর কাছ থেকে ফ্লেক্স নিত, তাদের কাজ ছিল প্লাস্টিকের চ্যাপ্টা ফিতা বা স্ট্রাপ তৈরি করা। সে কোম্পানির একজন কর্মী তাঁকে পরামর্শ দিলেন কাঁচামাল যেহেতু ঘরেই আছে, সে দেশে শুরু করতে পারেন কি না স্ট্রাপ তৈরির ব্যবসা? জুয়েল বলেন, ‘আমি ভেবে দেখলাম, আমি এই ব্যবসাটাই লম্বা সময় ধরে করছি, এটাই শিখেছি। ফ্লেক্স বিক্রি করতে না পারলে টিকে থাকতে এ ব্যবসাই ধরতে হবে।’

এই করোনায় অনেকেই ঝরে পড়বেন, যাঁরা টিকে যাবেন তাঁরা সামনে বাজারটা নিয়ন্ত্রণ করবেন। আমি সেই আশাতেই কাজ করে যাচ্ছি।
হাবিবুর রহমান জুয়েল

চীনা সেই বন্ধুর পরামর্শে দেশে আনা হয় নতুন মেশিন, সঙ্গে দুজন চীনা টেকনিশিয়ান। তাঁদের কাজ ছিল আন্তর্জাতিক মানের স্ট্রাপ তৈরি করা। ঢাকার সোনারগাঁয়ে নেওয়া হয় নতুন কারখানা। সে কারখানাতেই কথা হয় হাবিবুর রহমান জুয়েলের সঙ্গে।
প্রায় দুই কাঠার ওপরে মুনলাইট ফ্লেক্স অ্যান্ড স্ট্রাপ ইন্ডাস্ট্রি। তিনটা লাইনে তৈরি হচ্ছে স্ট্রাপ। কারখানার এক পাশে মিহিদানা করা হচ্ছে প্রাথমিকভাবে চূর্ণ করা প্লাস্টিক। সেই চূর্ণই আসছে মেশিনে গলে আবার নতুন করে স্ট্রাপ হতে। ঢাকার মেরাদিয়ার আরেকটা আলাদা কারখানায় প্রাথমিকভাবে তৈরি করা হয় ফ্লেক্স। বড় মাঠের মতো জায়গায় জমিয়ে রাখা হয় কুড়িয়ে আনা বোতল। সেই বোতল ভাঙা হয় সেখানে।

স্ট্রাপের বাজার ধরলেও পুরোনো ফ্লেক্সের ব্যবসা থেকে সরে আসেননি হাবিবুর রহমান জুয়েল। ‘চীনের কাছে ফ্লেক্স দেওয়া বন্ধ হওয়ার পরে আমি অন্যান্য দেশে চেষ্টা করতে থাকি। এরপর দেখা যায় ভারতের ফ্লেক্স লাগছে, ভিয়েতনাম থেকেও অর্ডার আসছে। এখন ভারতেও ফ্লেক্স রপ্তানি বন্ধ হওয়ার পর ভিয়েতনাম আমাদের বড় বাজার। আর আমাদের নিজেদের চাহিদা তো আছেই।’

২০২০ সব ব্যবসার জন্য খুব কঠিন বছর গেছে, মুনলাইটও তার ব্যতিক্রম নয়। হাবিবুর রহমান জুয়েল জানালেন, পণ্য রপ্তানির ফরমাশ কমে এসেছে অর্ধেকে আর দামও পড়ে গেছে অনেক। এর বাইরে করোনার মধ্যে কাঁচামাল সংগ্রহ কারখানা চালু রাখার সীমাবদ্ধতা তো ছিলই। তারপরও মন শক্ত করে ব্যবসায় টিকে আছেন তিনি।

‘আমি বিশ্বাস করি, অনেক সীমাবদ্ধতার মধ্যেও সম্ভাবনা থাকে। আমাদের সম্ভাবনা হচ্ছে আমাদের কাছে কাঁচামালের সরবরাহ আছে। এই করোনায় অনেকেই ঝরে পড়বেন, যাঁরা টিকে যাবেন তাঁরা সামনে বাজারটা নিয়ন্ত্রণ করবেন। আমি সেই আশাতেই কাজ করে যাচ্ছি।’

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন