বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

খণ্ডকালীন কাজে নিযুক্ত নারীদের একটি বড় অংশও এই ব্যবধান কমাতে সাহায্য করেছে। কিন্তু উচ্চ বেতনে স্নাতক ডিগ্রিধারী নারীদের বেতনবৈষম্যে এখনো তেমন কোনো অগ্রগতি হয়নি। যদিও যুক্তরাজ্যের সরকার দাবি করেছে যে লিঙ্গভেদে বেতন ব্যবধান ‘উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে’।

আইএফএস ডেটন রিভিউ অব ইনইকুয়ালিটিসের অংশ হিসেবে করা এই গবেষণা প্রতিবেদনটি নারী-পুরুষের কর্মসংস্থান, কর্মঘণ্টা ও মজুরি—এই তিনটি মানদণ্ডের ওপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছে।

এতে গবেষকেরা দেখেছেন যে চাকরি করতে সক্ষম নারীরা সমবয়সী পুরুষদের তুলনায় মাসে ৫০ ঘণ্টারও বেশি বিনা বেতনে কাজ করেন। পরিবারে সন্তান পালনের দায়িত্ব আসার পরে কাজের সময়ের এই ব্যবধান আরও বেড়ে যায়। পাশাপাশি বেতনের ক্ষেত্রে বৈষম্যের কারণে একক মায়েরা অধিক দারিদ্র্যের ঝুঁকিতে রয়েছেন।

গবেষণায় উঠে এসেছে, যুক্তরাজ্যে কর্মজীবী নারীর সংখ্যা পুরুষের তুলনায় বেশি। তবে ২০১৯ সালেও দেশটির কর্মজীবী নারীরা তাঁদের সমবয়সী পুরুষদের তুলনায় ৪০ শতাংশ কম আয় করতে পারতেন। অর্থাৎ, শিক্ষিত হলেও বেতনের পরিমাণ খুব একটা বাড়েনি নারীদের।

গবেষণাটি নিয়ে লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকসের দ্য ইনক্লুশন ইনিশিয়েটিভের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক গ্রেস লর্ডান বলেন, ‘আমি এই ফলাফল দেখে একদম অবাক হইনি। এমনকি যখন পুরুষ ও নারী সমমানের কোনো ডিগ্রি নেন, তখনো নারীরা কম বেতন পান। এই ব্যবধান কমাতে সরকারকে কোম্পানিগুলোকে বেতন ব্যবধান কমানোর ওপর জোর দিতে বলেন এই অর্থনীতিবিদ।’

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন