কোভিডের কারণে শহরের গরিব মানুষের আয়রোজগার কমে গেছে। এবার তাঁদের জন্য নেওয়া নতুন প্রকল্পে প্রায় ৩০ কোটি ডলার দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক। বর্তমান বাজারদরে টাকার অঙ্কে এর পরিমাণ ২ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। লোকাল গভর্নমেন্ট কোভিড-১৯ রেসপন্স অ্যান্ড রিকভারি প্রকল্পে এ অর্থ দেওয়া হবে। সম্প্রতি বিশ্বব্যাংক এ অর্থ অনুমোদন করেছে।

বিশ্বব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, এ প্রকল্পের সুবিধা ভোগ করবেন দেশের শহরগুলোর চার কোটি নাগরিক। এ প্রকল্পের আওতায় দেশের ১০টি সিটি করপোরেশন ও ৩২৯টি পৌরসভা প্রতিবছর দুবার তহবিল পাবে। সেই তহবিল দিয়ে হাত ধোয়া থেকে শুরু করে টিকা প্রদানসহ বিভিন্ন ধরনের সুবিধা নিশ্চিত করা হবে। এতে পৌর কর্তৃপক্ষের নিজস্ব প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়নের সক্ষমতা বাড়ছে। এ ছাড়া শর্ত হচ্ছে, এ প্রকল্পের আওতায় প্রতিটি সিটি করপোরেশন বা পৌরসভা কর্তৃপক্ষ যদি কোনো পূর্ত কাজ করে, তাহলে ওই শহরের গরিব বেকার শ্রমিকদের নিয়োগ করতে হবে। এমনকি অর্ধেক শ্রমিক নারী হতে হবে। এ প্রকল্পের আওতায় ১৫ লাখ দিনের কাজ এবং কমপক্ষে ১০ হাজার কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। ২০২৬ সালে এ প্রকল্প শেষ হবে।

বিশ্বব্যাংকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশের এদেশীয় প্রধান মার্সি টেম্বন বলেন, ‘কোভিডে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে শহরের গরিব মানুষ। তাদের আয় কমেছে, আবার বিভিন্ন ধরনের রাষ্ট্রীয় সেবা থেকে বঞ্চিত হয়েছে, এ প্রকল্প তাদের আয় পুনরুদ্ধারে সহায়তা করবে।’

বিশ্বব্যাংক এ পর্যন্ত কোভিড মোকাবিলা ও পুনরুদ্ধারে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশকে ৩০০ কোটি ডলার দিয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হলো কোভিড জরুরি সহায়তা প্রকল্প, কর্মসংস্থান প্রকল্প, পানি ও পয়োব্যবস্থাপনা উন্নয়ন প্রকল্প, বেসরকারি খাত উন্নয়ন প্রকল্প। বিশ্বব্যাংক ছাড়া এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, এশীয় অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংকসহ (এআইআইবি) বিভিন্ন দাতা সংস্থা ও দেশ অর্থ দিয়েছে।