বিজিএমইএর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিদলে ছিলেন জোসে ম্যানুয়েল গার্সিয়া-মার্গ্যালো, সোভেন সিমন, অ্যাগনেস জঙ্গেরিয়াস, জর্ডি ক্যানাস পেরেজ, ম্যাক্সিমিলান ক্রাহ। অন্যদিকে বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হাসান, সহসভাপতি মিরান আলী, বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম, সহসভাপতি ফজলে এহসা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জানতে চাইলে মোহাম্মদ হাতেম বলেন, ‘আমরা ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিদের জানিয়েছি, বিজিএমইএর তথ্যভান্ডারে শ্রমিকদের কালোতালিকাভুক্ত করা হচ্ছে না। বরং তাদের সুযোগ-সুবিধা দিতেই এটি ব্যবহার করা হয়। বাংলাদেশি মানদণ্ডে পোশাকশ্রমিকদের জীবনধারণের উপযোগী মজুরি দেওয়া হচ্ছে। দু-তিনটি খাত ছাড়া পোশাকশিল্পের শ্রমিকেরা সর্বোচ্চ মজুরি পাচ্ছেন।’

শ্রম অধিকার ও মানবাধিকার সুরক্ষায় বাংলাদেশ কতটা কার্যকর পদক্ষেপ নিচ্ছে, তা খতিয়ে দেখতে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের ছয় সদস্যের এ প্রতিনিধিদল ঢাকায় এসেছে।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন