বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রথম আলো: আপনাদের পরিকল্পনা কী?

বিয়ার্কে মিকেলসেন: প্রথমত, মূল মার্কেটপ্লেস প্রসারিত করা। এর অর্থ হচ্ছে প্ল্যাটফর্মে বেশি ক্রেতা, বেশি বিক্রেতাকে আকৃষ্ট করা। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে বিশ্বব্যাপী শত মিলিয়ন ক্রেতার কাছে পৌঁছানো। আমি মনে করি, এর অর্ধেকই বাংলাদেশ থেকে আসা উচিত। আমরা আমাদের বিক্রেতা গোষ্ঠী, ক্রেতা গোষ্ঠীর বিস্তৃতি অব্যাহত রাখব। সেবা ও পণ্য আমাদের ক্রেতা ও বিক্রেতার কাছে পৌঁছানো আমাদের মূল উদ্দেশ্য। আমরা অন্য কাজও করে যাব। তবে এ জন্য বিশ্বাস বা আস্থা, পণ্যের গুণগত মান, সেবার মান, ক্রেতার জন্য সেবা—এসব বিষয়ের দিকে আমাদের নজর দিতে হবে প্রথমে। মৌলিক এসব চাহিদার সবকিছু শতভাগ নিখুঁত হতে হবে।

প্রথম আলো: ক্রেতাদের আস্থা বাড়াতে কী করছেন?

বিয়ার্কে মিকেলসেন: আমাদের এখন অগ্রাধিকার হচ্ছে লজিস্টিকস, যা ব্যবসায়িক মডেলকে লাভবান করা। এই মুহূর্তে আমরা লাভের মধ্যে নেই। আমরা অবশ্যই মুনাফা চাই। এর জন্য আমাদের বেশি পরিমাণে লজিস্টিক সক্ষমতা বাড়ানো দরকার। এর অর্থ হচ্ছে পরিচালনায়, অবকাঠামো এবং নেটওয়ার্ক পরিচালনায় আমাদের বেশি বিনিয়োগ দরকার, যাতে সেবা দ্রুততম সময়ে দক্ষতার সঙ্গে ক্রেতাদের কাছে পৌঁছানো যায়। আর তৃতীয় কৌশল হচ্ছে অর্থ পরিশোধ। আমরা ভাগ্যবান যে বাংলাদেশে অর্থ পরিশোধের ভালো একটা অবকাঠামো পেয়েছি, ব্যাংকের মাধ্যমে, বিকাশ ও অন্যান্য ওয়ালেটের মাধ্যমে। কিন্তু আমাদের এখনো অনেকটা পথ পাড়ি দিতে হবে। আমাদের ব্যবসার অর্ধেকই এখনো তরল টাকায়। তরল টাকায় লেনদেন খুবই ব্যয়বহুল। কাজেই শেষ পর্যন্ত আমাদের অর্থ পরিশোধের পথটা আরও স্থিতিশীল করতে চাই। এটা আমাদের ক্রেতাদের জন্য ভালো হবে, তাঁদের তরল অর্থ নিয়ে কিছু করতে হবে না।

প্রথম আলো: পাকিস্তান ও অন্যান্য দেশে আপনাদের অভিজ্ঞতা কেমন?

বিয়ার্কে মিকেলসেন: আমার মনে হয়, বিভিন্ন দিক থেকে চিন্তা করলে বাজারগুলো একই ধরনের। কিন্তু বাংলাদেশে আমি ব্যতিক্রম শিল্পোদ্যোগ দেখতে পাই। এটা একটা বিরাট সুযোগ, বিশেষ করে বিক্রেতাদের জন্য। সত্যিকার অর্থেই বেশির ভাগ লোক মনে করে, দারাজ একটি কাস্টমার ফেসিং অ্যাপলিকেশন। কিন্তু আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপ হচ্ছে আমাদের সেলার অ্যাপ। এখানে বিক্রেতারা ফোন থেকেই তাঁদের পুরো ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন। তাঁদের সঠিক জিনিসটি দেওয়ার মাধ্যমে আমরা ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোগসমূহ (এসএমই) শক্তিশালী করতে পারি। সারা দেশে ব্যবসার সৃষ্টি করতে পারি। এই জায়গাটাতে বাংলাদেশ অনন্য।

প্রথম আলো: আমরা জানি, বাংলাদেশ কিছু সমস্যার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। কিছু ই-কমার্স শিল্প, কোম্পানি মন্দ ব্যবসা করছে, মন্দ দৃষ্টান্ত তৈরি করছে। আপনার অভিজ্ঞতা কী?

বিয়ার্কে মিকেলসেন: প্রথমত, যা ঘটেছে, তা ই-কমার্স শিল্পে একটা প্রভাব ফেলেছে। কিন্তু আমি এটাকে একটা সুযোগ হিসেবেও দেখি। এমন একটি ব্যবস্থা করতে হবে, যাতে প্রত্যেকেই ই–কমার্স বিষয়টি বুঝতে পারেন। ই–কমার্সের অর্থ এমন না যে আপনি অর্ধেক দামে একটা আইফোন পেয়ে যাবেন, অথবা আপনি প্রতারণা করবেন। ই-কমার্স বলতে সেবা বোঝায়, সেটাই হওয়া উচিত। মানুষকে সহায়তা করাই এর উদ্দেশ্য হওয়া উচিত। আর এর মাধ্যমে ক্রেতা ও বিক্রেতা একে অপরের সঙ্গে পণ্য লেনদেন করতে পারেন। কাজেই আমি ই–কমার্সের ব্র্যান্ডিংয়ের সুযোগ দেখি। আমরা মনে করি, নীতিমালা থাকা ভালো। নীতিমালা নিয়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হচ্ছে, এটি বেসরকারি খাতের সহযোগে হচ্ছে। সরকারের সঙ্গে আমাদের সঠিক সময়ে সঠিক আলোচনাই হচ্ছে। যতক্ষণ পর্যন্ত বেসরকারি খাত এর সঙ্গে সম্পৃক্ত, ততক্ষণ পর্যন্ত নীতিমালা করা ভালো বিষয়। কিন্তু নীতিমালা প্রণয়নকারীদের মনে রাখতে হবে যে ই–কমার্স খাত এখনো বেশ ক্ষুদ্র, অর্থনীতিতে এর প্রভাব আছে, ডিজিটাল অর্থনীতির একটি অংশ এবং এটা বাংলাদেশের সার্বিক অর্থনীতিতে সহায়তা করতে পারে। আমাদের এমন নীতিমালা তৈরি করতে হবে, যা শিল্পের সমৃদ্ধিতে সহায়তা করে। এই বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

প্রথম আলো: আমরা জানি, আলিবাবা দারাজকে কেনে ২০১৮ সালে। ২০১৮ সালের আগে ও পরে আপনার অভিজ্ঞতা কী?

বিয়ার্কে মিকেলসেন: প্রথমেই আমি বলব, আলিবাবা দারুণ একটা পার্টনার, চমৎকার শেয়ারহোল্ডার। গর্বসহকারে বলতে গেলে, আলিবাবা হচ্ছে আমাদের শেয়ারহোল্ডার। তারা বেশ উপকার করছে। আমাদের প্রযুক্তিবিষয়ক ভাবনায় বেশ বড় পরিবর্তন এনেছে তারা। একবারে শুরু থেকেই আমাদের ডিএনএতে প্রযুক্তি বিষয়টি ঢুকে গেছে। আলিবাবা মানেই সবার প্রথমে প্রযুক্তি। প্রযুক্তি দিয়ে শুরু, প্রযুক্তি দিয়ে শেষ। আর এই মনস্তত্ত্বটা আমাদের প্রতিষ্ঠানের শরীরজুড়ে একীভূত হচ্ছে। আমরা সত্যিকার অর্থেই ‘সবার আগে প্রযুক্তি’ (টেক-ফার্স্ট) কোম্পানি হয়েছি। আমি মনে করি, এটাই আমাদের সবচেয়ে বড় পরিবর্তন। আর এই সংস্কৃতিটা আমরা আলিবাবা থেকে শিখেছি।

প্রথম আলো: আপনারা এখানে কী রকম ব্যবসা চান?

বিয়ার্কে মিকেলসেন: আমরা স্বাস্থ্যকর উপায়ে ব্যবসা করতে চাই। বাংলাদেশের ডিজিটাল অর্থনীতির একটা সমৃদ্ধিশালী ও বড় অংশ হচ্ছে ই-কমার্স। আপনাদের অঙ্গীকার করছি, কোনো সমস্যা হলে সব সময় ইউচ্যাট, ই–মেইল, লিংকডইনে যোগাযোগ করতে পারেন। কারণ, দারাজ হচ্ছে তা, যাকে আপনি বিশ্বাস করতে পারেন।

প্রথম আলো: তাহলে বলতে পারি আপনারা এখানে দীর্ঘ সময়ের জন্য এসেছেন।

বিয়ার্কে মিকেলসেন: আমরা এখানে দীর্ঘ সময়ের জন্য এসেছি। আমরা এখানে সঠিকভাবে ব্যবসা করতে চাই। কারণ, বাংলাদেশই ভবিষ্যৎ।

প্রথম আলো: দক্ষিণ এশিয়ার বাজার কেন বেছে নিয়েছেন?

বিয়ার্কে মিকেলসেন: প্রথম কারণ জনসংখ্যা। দ্বিতীয় কারণ জিডিপি, আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে মধ্যবিত্তের উত্থান। অন্য বিষয়গুলো হচ্ছে ইন্টারনেটের উন্নয়ন ও অর্থ প্রদান। আমি বিশ্বের সব জায়গায় খোঁজ নিয়েছি, দক্ষিণ এশিয়া সেরা।

বিশ্লেষণ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন