নাজনীন আহমেদ

বিশ্বের ঘনবসতিপূর্ণ বড় শহরগুলোতে মেট্রোরেল–ব্যবস্থা রয়েছে। এ ধরনের গণপরিবহন চালুর অন্যতম উদ্দেশ্য মানুষের যোগাযোগকে সহজ ও সময় সাশ্রয়ী করা। এতে সংশ্লিষ্ট দেশের অর্থনীতিও বিভিন্নভাবে উপকৃত হয়। এসব দিক বিবেচনায় রাজধানী ঢাকায় মেট্রোরেল চালু হওয়া একটা বৈপ্লবিক ব্যাপার।

মেট্রোরেল যানজট এড়িয়ে আমাদের গণমানুষের যাতায়াতের সময় বাঁচাবে। এর ফলে অনেক কর্মঘণ্টা আমরা পাব। যে কর্মঘণ্টাগুলো মানুষ কোনো না কোনো কাজে লাগাতে পারবে। এমনকি মানুষ যদি বিশ্রামও নেয়, তাতে তাদের অন্য কাজের গতিশীলতাও বাড়বে। অর্থাৎ মেট্রোরেলের মাধ্যমে শুধু যে তাৎক্ষণিক যাতায়াতের সময় বাঁচবে তা নয়, গণমানুষের কর্মদক্ষতা ও উৎপাদনশীলতাও বাড়বে।

মেট্রোরেলের মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে চাকরিজীবী, ব্যবসায়ী, অসুস্থ মানুষসহ সবাই উপকৃত হবেন। যেহেতু অর্থনীতিকে চালায় মানুষ। আর এই মানুষ যত বেশি দক্ষ ও কর্মক্ষম হবে, তত বেশি সে অর্থনীতিতে অবদান রাখতে পারবে। পাশাপাশি মেট্রোরেলকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন জায়গায় অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বাড়বে। এসব দিক থেকে মেট্রোরেল অর্থনীতিতে বড় অবদান রাখতে পারে বলে আমার বিশ্বাস।

অর্থনৈতিক ভূমিকার পাশাপাশি মেট্রোরেল চালুর ফলে ঢাকায় দূষণের পরিমাণও কমাতে পারে। প্রধানমন্ত্রীও মেট্রোরেলকে পরিবেশবান্ধব বাহন বলেছেন। তবে মেট্রোরেল কোনোভাবেই বাস বা অন্যান্য গণপরিবহনের পুরোপুরি বিকল্প নয়। তাই মেট্রোরেলে পাশাপাশি উন্নত গণপরিবহনের সংখ্যাও বাড়াতে হবে। সেই সঙ্গে ব্যক্তিগত গাড়ির পরিমাণ কমানোর উদ্যোগ নিতে হবে।

নাজনীন আহমেদ, প্রধান অর্থনীতিবিদ, ইউএনডিপি বাংলাদেশ