কেন ব্যাংক পেশা ছেড়ে দিচ্ছেন জানতে চাইলে আরফান আলী বলেন, ‘আমি কর্মজীবনে আর্থিক অন্তর্ভুক্তি নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করেছি। আরও বড় পরিসরে আর্থিক অন্তর্ভুক্তি নিয়ে কাজের জন্য ব্যাংক পেশা ছেড়ে দিচ্ছি। আশা করছি, এর মাধ্যমে প্রান্তিক জনগণের জীবনমান আরও উন্নত করা যাবে।’

তবে খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, আরফান আলী ব্যাংক এশিয়ার কর্মকর্তা থেকে এমডি হয়েছেন। ব্যাংকটির মূল উদ্যোক্তারা তাঁকে যতটা কাজের স্বাধীনতা দিয়েছিলেন, পরবর্তী প্রজন্ম ততটা সুযোগ দিচ্ছে না। ফলে আরফান আলীর জন্য ব্যাংকে থেকে যাওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে। একই পরিবেশ অন্যান্য ব্যাংকেও। এ জন্য অন্য কোনো ব্যাংকেও তিনি যাচ্ছেন না।

আরফান আলী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট (আইবিএ) থেকে এমবিএ ডিগ্রি নেন। ১৯৯১ সালে আরব বাংলাদেশ ব্যাংকে প্রবেশনারি কর্মকর্তা হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে তাঁর কর্মজীবন শুরু হয়। ১৯৯৬ সালে কোরীয় হানিল ব্যাংকে (উরি ব্যাংক) যোগ দিয়ে ঢাকায় অফিস স্থাপনে নেতৃত্ব দেন। ১৯৯৯ সালে ব্যাংক এশিয়া প্রতিষ্ঠার আগে তিনি ব্যাংকটিতে যোগদান করেন। ২০১৬ সালের আগস্টে তিনি ব্যাংক এশিয়ার এমডি হিসেবে দায়িত্ব নেন। তিন বছর করে দুই মেয়াদে তাঁর ছয় বছরের মেয়াদ শেষ হবে শুক্রবার।

কর্মজীবনে আরফান আলী এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে নেতৃত্বে দিয়েছেন। এ ছাড়া ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পে (বর্তমানে আমার বাড়ি আমার খামার) প্রযুক্তি ও ব্যাংকিং সুবিধা দিতে এবং কিউআর কোডের মাধ্যমে মাইক্রো মার্চেন্ট লেনদেন চালুতে ভূমিকা রেখেছেন। অর্থাৎ তাঁর কর্মজীবনের সবকিছুই ছিল প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে ঘিরে।

ব্যাংক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন