২০টি বে-বিশিষ্ট এই সার্ভিস সেন্টারে প্রতিদিন ১২০ জনের বেশি গ্রাহক সেবা নিতে পারবেন। গ্রাহক–সুবিধায় এখানে রয়েছে ওয়াইফাই সুবিধাসংবলিত প্রশস্ত ওয়েটিং রুম। ইয়ামাহার সব ধরনের আসল স্পেয়ার পার্টস ও লুব্রিক্যান্টও পাওয়া যাবে এ সেন্টারে।
গ্রাহকদের নিরাপত্তা বিবেচনায় এই সার্ভিস সেন্টারে রয়েছে সার্টিফায়েড হেলমেট ও বিভিন্ন ধরনের সেফটি গিয়ার ক্রয়ের সুবিধা। অত্যাধুনিক এই সার্ভিস সেন্টারের সবকিছু কম্পিউটারাইজড। গ্রাহকেরা খুব সহজে অনলাইন বুকিংয়ের মাধ্যমে বাইক সার্ভিস করাতে পারবেন। যাতে সময় অপচয় অনেকটাই কমে যাবে। গ্রাহকেরা পেপারলেস জব কার্ড সিস্টেমের মাধ্যমে যেকোনো জায়গা থেকে মুঠোফোনে সার্ভিসের লাইভ স্ট্যাটাস দেখতে পারবেন।

উল্লেখ্য, এসিআই মোটরস বাংলাদেশে ইয়ামাহা মোটরসাইকেলের একমাত্র পরিবেশক ও যৌথ কারিগরি সহযোগী (টেকনিক্যাল কোলাবোরেটেড পার্টনার)। এসিআই লিমিটেডের একটি সহায়ক প্রতিষ্ঠান হিসেবে ২০০৭ সালে যাত্রা শুরু করে এসিআই মোটরস। বর্তমানে সারা দেশে ইয়ামাহার ৯৯টির বেশি ‘থ্রিএস ডিলার পয়েন্ট’ রয়েছে।
দেশের সব ডিলার পয়েন্টে ইয়ামাহা নিশ্চিত করেছে থ্রিএস সুবিধা। ফলে বাইক ক্রেতাদের সেবা নিয়ে কোনো ঝামেলা পোহাতে হয় না। প্রতিটি সার্ভিস সেন্টারে ইয়ামাহা নিশ্চিত করেছে ইয়ামাহা ডায়াগনস্টিক টুলস (ওয়াইডিটি) এবং ফুয়েল ইনজেক্টর মেশিনের (এফআই মেশিন) মতো আধুনিক সব সরঞ্জাম। যার সুবিধা ভোগ করছেন দেশব্যাপী হাজারো ইয়ামাহা বাইক ব্যবহারকারী।

ইয়ামাহা সার্ভিসের ক্রমাগত উন্নতির জন্য কাজ করে যাচ্ছে ইয়ামাহা টেকনিক্যাল একাডেমি (ওয়াইটিএ)। যার মাধ্যমে ইয়ামাহার দেশজুড়ে সার্ভিস সেন্টারে যুক্ত সব সার্ভিস টেকনিশিয়ানকে সার্ভিস টেকনিক্যাল ট্রেনিং দেওয়া হয়। ওয়াইটিএর ট্রেইনাররা ইয়ামাহা গ্লোবাল থেকে ট্রেনিংপ্রাপ্ত এবং তাঁরা ইয়ামাহার এফআই স্টেশন, ওয়াইডিটিসহ বিভিন্ন টেকনিক্যাল বিষয়ে বিশেষজ্ঞ। বর্তমানে ওয়াইটিএর এক্সপার্ট ট্রেইনার এবং অ্যাডভান্সড ইকুইপমেন্টের দ্বারা সব সার্ভিস টেকনিশিয়ানকে গড়ে তোলা হচ্ছে এক্সপার্ট ও প্রো-অ্যাকটিভ হিসেবে।

ইয়ামাহা টেকনিক্যাল একাডেমি সব সময় চেষ্টা করছে ইয়ামাহার সব টেকনিশিয়ানকে টেকনিক্যাল নলেজ বৃদ্ধির মাধ্যমে এক্সপার্ট হিসেবে গড়ে তুলতে, যেন ইয়ামাহা রাইডাররা তাদের বাইক নিয়ে সম্পূর্ণ চিন্তামুক্ত থাকেন এবং সাবলীলভাবে বাইক চালাতে পারেন আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে।