default-image

গতকাল আমাদের অফিসে কতিপয় লোক দ্বারা অফিস কর্মকর্তাদের গায়ে হাত তোলা এবং বলপ্রয়োগের চেষ্টার কারণে আমরা এমন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হচ্ছি। উল্লেখ্য যে বলপ্রয়োগকারীরা আমাদের কাস্টমার নয়, তাদের পেমেন্ট শিডিউল ছিল না। এমনকি এসএমএস পায়নি। পর্যাপ্ত নিরাপত্তা পাওয়ার পরই পুনরায় আমাদের কার্যক্রম শুরু হবে।’

এ প্রসঙ্গে জানতে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মো. মঞ্জুর আলম শিকদারের মুঠোফোনে এবং জনসংযোগ বিভাগে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।
এর আগে গত নভেম্বর মাসে গ্রাহকেরা তেজগাঁওয়ে আলেশা মার্টের অফিসে এসে তা বন্ধ পাওয়ার অভিযোগ করেন। যদিও কর্তৃপক্ষ তা অস্বীকার করে। এ বছরের জানুয়ারিতে ই–কমার্স প্রতিষ্ঠান হিসেবে আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু করে আলেশা মার্ট।

সাম্প্রতিক সময়ে ই–কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে টাকা নিয়ে পণ্য না দেওয়ার অভিযোগ ছিল। এ ছাড়া প্রতারণাসহ বিভিন্ন অভিযোগ একাধিক ই–কমার্স প্রতিষ্ঠানের মালিক ও কর্মকর্তারা গ্রেপ্তার হয়েছেন। অনেকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ ছাড়া আলেশা মার্টসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে এবং সরকার তদন্ত করছে।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন