বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কর মামলা নিষ্পত্তির জন্য আলাদা বেঞ্চ গঠন, দ্রুত বার্ষিক প্রতিবেদনের তথ্য সরবরাহের পাশাপাশি যৌথ উদ্যোগের কোম্পানি হলেই যে কর অব্যাহতি দেওয়া হয়, তা থেকে বের হয়ে আসার পরামর্শ দেওয়া হয় প্রবন্ধে।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এসব বিষয়ে কোনো কথা বলেননি। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার দিকে আমরা এগোচ্ছি। তবে তছরুপ এখনো বন্ধ করতে পারিনি।’ পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, ‘রাজস্ব সংগ্রহের সবচেয়ে কম কষ্টদায়ক পদ্ধতি হচ্ছে ভ্যাট। আমি এটা পছন্দ করি। কিছু কিনলে আপনাকে ভ্যাট দিতে হবে। ব্যস্। অথচ এই ভ্যাট নিয়ে কত কথা। আমি তো অর্থ মন্ত্রণালয়েও ছিলাম। চুপচাপ বসে শুনেছি। একেবারে লেজেগোবরে বানিয়ে ফেলেছিল। এত পোড় খাওয়ার পরও এনবিআরের সংগ্রহের ৩৯ শতাংশ ভ্যাট থেকে আসে। এটা আরও বাড়বে।’
এনবিআর সদস্য মো. আলমগীর হোসেন বলেন, কোভিডে এনবিআর আটজনকে হারিয়েছে। হোম অফিস থাকলে ভালো হতো। আর আগামী বছর থেকে অনলাইনে টাকা পরিশোধ করা যাবে।

এনবিআরের আরেক সদস্য মাসুদ সাদিক বলেন, ‘কিছু কিছু ক্ষেত্রে ভ্যাট আইন নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে। আমাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে ব্যবসার প্রক্রিয়াকে সহজ করা। আবার আমরা যাতে রাজস্ব না হারাই, এটাও তো দেখতে হবে।’

অনেক ব্যবসায়ী সঠিক হিসাব পদ্ধতি সংরক্ষণ করেন না, মাসুদ সাদিক এমন মন্তব্য করলে তাৎক্ষণিকভাবে জবাব দেন আইসিএবি সভাপতি মাহমুদুল হাসান। বলেন, এখন ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ কম। আয়কর বিষয়ে এনবিআরের সঙ্গে আইসিএবির চুক্তি হয়েছে। ভ্যাট নিয়েও হবে।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন