বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে মার্কেট কর্তৃপক্ষের ঘোষণায় বলা হয়, কারও বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ পেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে মার্কেট বা কাজ থেকে বহিষ্কার এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছেও সোপর্দ করতে পিছপা হবে না ব্যবসায়ী সমিতি।

ঘোষণায় দোকানমালিকদের উদ্দেশে বলা হয়, এই ব্যবসা আমাদের রুটিরুজির উৎস। তাই এমন কিছু করা যাবে না, যাতে এই উৎস ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কর্মচারীদের কারণে যেন আপনার ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সে জন্য সব সময় সজাগ দৃষ্টি রাখবেন।

এসব ঘোষণায় কিছুটা স্বস্তি পাচ্ছেন বলে জানান নিউমার্কেটে কেনাকাটা করতে আসা ক্রেতারা। মিরপুর থেকে আসা ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘আজ বেশ ভালোই মনে হচ্ছে। ক্রেতার সংখ্যা কম, আর বিক্রেতারাও তুলনামূলক ভালো আচরণ করছেন। আসার আগে যতটা শঙ্কায় ছিলাম, আসার পরে সে রকমটা আর মনে হয়নি।’

এ বিষয়ে ঢাকা নিউমার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি দেওয়ান আমিনুল ইসলাম বলেন, ক্রেতাদের তরফ থেকে কোনো অভিযোগ এলে সমিতি তা খতিয়ে দেখবে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে কর্মচারী ও এমনকি দোকানমালিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউমার্কেটের পাশে চন্দ্রিমা সুপারমার্কেটও নিয়েছে একই ব্যবস্থা। চন্দ্রিমা সুপারমার্কেট মালিক সমিতির সভাপতি মনজুর আহমেদ বলেন, ‘আমরা ক্রেতাদের বিশ্বস্ততা অর্জনের চেষ্টা করে যাচ্ছি। শিগগিরই মার্কেটের সব বিক্রয়কর্মীর পরিচয়পত্র দিয়ে দেওয়া হবে, যাতে কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়।’

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন