বিজ্ঞাপন

বিদেশি প্রতিষ্ঠানের মালিকদের অভিযোগ, বাংলাদেশে অবস্থিত শতভাগ বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রণোদনা প্যাকেজ না পাওয়া তাদের প্রতি অসমতার শামিল। তারা বিষয়টি বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) কাছে তুলে ধরেন। বেজা, বেপজা ও হাইটেক পার্কের শিল্পপ্রতিষ্ঠান যদি প্রণোদনার টাকা পেয়ে থাকে, বিডার মাধ্যমে আসা শিল্পপ্রতিষ্ঠান কেন সমান সুবিধা পাবে না, তার ব্যাখ্যা জানতে চান ব্যবসায়ীরা। এরপর বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোকে সমান সুযোগ দেওয়ার সুপারিশ করে বিডা। সেই পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংক আলাদা সার্কুলার জারি করে।
করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে এখন পর্যন্ত সোয়া ১ লাখ কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করেছে সরকার। এখন পর্যন্ত ২৩টি প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্কুলারে বলা হয়েছে, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বাস্তবায়নাধীন প্রণোদনার প্যাকেজে বেজা, বেপজা ও হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষে অবস্থিত শিল্পপ্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি ওই অঞ্চলের বাইরে অবস্থিত শতভাগ বিদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানও প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় আসবে। একই সঙ্গে দেশি বিদেশি যৌথ মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানও এই সুবিধা পাবে। যেটা এত দিন বেজা, বেপজা ও হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষে অবস্থিত শিল্পপ্রতিষ্ঠান পেয়ে আসছিল। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সব শিল্পপ্রতিষ্ঠান প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় আনার লক্ষ্যে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত বছর ১ অক্টোবর জারি করা সার্কুলারে বলা হয়েছিল, করোনাভাইরাসের প্রভাবে রপ্তানি বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত প্রতিষ্ঠানগুলোর পাশাপাশি দেশে অবস্থিত সব শিল্পপ্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দেশীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বিদেশি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন ও কর্মসংস্থান অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে বেজা, বেপজা ও হাইটেক পার্কে অবস্থিত এ, বি ও সি টাইপ শিল্পপ্রতিষ্ঠানগুলো প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় আসবে।

জানতে চাইলে বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘বেজা, বেপজা ও হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের আওতায় শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে প্রণোদনার সুবিধা দেওয়ার পর বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও এই সুবিধা পাওয়ার দাবি তুলেছে। ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ফিকি) মাধ্যমে আমাদের কাছে এসব দাবি এসেছে।’ তারা বলেছে, করোনায় অন্যদের মতো তারাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেই বিবেচনায় তাদেরও প্রণোদনার সুবিধা দেওয়া জরুরি। বাংলাদেশ ব্যাংকের আজকের সার্কুলার ভালো সিদ্ধান্ত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বিডার কর্মকর্তারা বলছেন, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী, একটি দেশের সব শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে সমান সুবিধা দিতে হবে। কাউকে সুবিধা দিয়ে কাউকে বঞ্চিত করার সুযোগ নেই। এতে অসমতা তৈরি হয়। বিডার মাধ্যমে অনেক শতভাগ বিদেশি প্রতিষ্ঠান বছরের পর বছর ধরে বাংলাদেশে ব্যবসা করছে। কিন্তু তারা প্রণোদনার প্যাকেজের আওতায় আসেনি। বিষয়টি অর্থ মন্ত্রণালয়, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাংলাদেশ ব্যাংকে জানানো হয়েছে। সে পরিপ্রেক্ষিতেই সবাইকে সমান সুবিধা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংক নতুন সার্কুলার জারি করেছে।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন