বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে সমুদ্রপথে পণ্য পরিবহনের ভাড়ার যে অস্বাভাবিক উত্থান হয়েছে তার রেশ রয়ে গেছে বছর শেষেও। তবে এদেশের অনেক উদ্যোক্তাই সমুদ্রপথে পণ্য পরিবহনের সম্ভাবনা কাজে লাগিয়েছেন। জাহাজ ভাড়া অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাওয়ার আগেই ওই সব উদ্যোক্তা সমুদ্রগামী জাহাজশিল্পে বিনিয়োগ বাড়িয়েছেন। এ সময় সাধারণ জাহাজের পাশাপাশি কনটেইনার জাহাজেও বিনিয়োগ বেড়েছে। বছরশেষে এর সুফলও পাচ্ছেন তাঁরা। এভাবেই ২০২১ সালজুড়ে সংকট, সম্ভাবনা ও বিনিয়োগের দেখা মিলেছে বন্দর ও বন্দর–সহযোগী শিল্পে।

করোনার প্রাথমিক ধাক্কা কাটিয়ে ২০২০ সালের শেষ দিক থেকে দেশে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড জোরদার হতে শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় এ বছরের প্রথম দিকে আমদানি–রপ্তানি বাড়তে থাকে। ফলে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে পণ্য পরিবহন বাড়তে শুরু করে। শুধু বাংলাদেশ নয়, বৈশ্বিক অর্থনীতিই তখন গতি পায়। এতে সমুদ্রপথে পণ্য পরিবহন বেড়ে যায়। কিন্তু করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় বিভিন্ন দেশ বন্দরে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে। যেকারণে বন্দরে বন্দরে জাহাজের অবস্থান করার সময় বৃদ্ধি পায়। সেজন্য বৈশ্বিক সরবরাহ ব্যবস্থায় অচলাবস্থা তৈরি হয়।

চীন ও ইউরোপ–আমেরিকার ব্যস্ত বন্দরগুলোয় বছরের প্রথমার্ধের শেষে জট তৈরি হয়। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে নিয়মিতভাবে এসব বন্দরে জটের খবর প্রকাশিত হয়।

তবে সেই সময় অর্থাৎ জুলাই মাসের পর থেকে চট্টগ্রাম বন্দরে জট কমে আসে, যা উদ্যোক্তাদের স্বস্তি দয়। দিনে দিনে জাহাজ ভিড়ানোর অনেক অর্জন আছে এ বন্দরের। বছর শেষে এখন জেটিতে ভিড়ানোর জন্য এক–দুদিনের বেশি অপেক্ষা করতে হচ্ছে না। ২৮ ডিসেম্বর জেটিতে অবস্থানরত ১০টি জাহাজের মধ্যে ৩টিই দিনে দিনে জেটিতে ভিড়েছে। একটি দুই দিন ও ছয়টি এক দিন পর জেটিতে ভিড়ানো হয়েছে। অর্থাৎ পণ্য হাতে পেতে দীর্ঘসময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে না আমদানিকারকদের। অন্য বছরের তুলনায় কনটেইনার পরিবহনও বেড়েছে এবার। প্রায় ৩২ লাখের কাছাকাছি কনটেইনার পরিবহনের রেকর্ড গড়তে চলেছে চট্টগ্রাম বন্দর।

বন্দর স্বস্তি দিলেও এ বছর উদ্যোক্তারা অস্বস্তিতে ছিলেন সমুদ্রপথে পণ্য পরিবহনের ভাড়া নিয়ে। দেশের উৎপাদনমুখী সব খাতের জন্যই কম–বেশি কাঁচামাল আমদানি করতে হয়। কাঁচামালের সিংহভাগ আসে বিদেশি জাহাজে। তাতে ভাড়া বাবদ ব্যয় করতে হয় বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা। স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় ভাড়া তিন–চার গুণ বৃদ্ধি পাওয়ায় রপ্তানিমুখী পণ্যের উৎপাদন ব্যয় যেমন বেড়েছে, তেমনি দেশে ব্যবহার্য পণ্যের দামও ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে। রপ্তানি পণ্য পরিবহনের ভাড়া বিদেশি ক্রেতারা পরিশোধ করে বলে এ যাত্রায় বেঁচে গেছেন রপ্তানিকারকেরা।

এদিকে পণ্য পরিবহনের সংকটকে সুযোগে রূপান্তর করেছেন দেশের উদ্যোক্তারা। মেঘনা গ্রুপ, কর্ণফুলী লিমিটেড, বসুন্ধরাসহ অনেক শিল্পগোষ্ঠীই নিজস্ব জাহাজ নামিয়েছে। নৌ পরিবহন অফিসের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর সমুদ্রগামী ১৭টি জাহাজ পানিতে ভাসিয়েছে তারা। তাই করোনার সময় পণ্য পরিবহনের ঝুঁকি নিয়ে নিরাশ হতে হয়নি তাদের। তারা নিজেদের পণ্য পরিবহনে যেমন খরচ বাঁচিয়েছে, তেমনি পণ্য পরিবহনের সুবাদে বৈদেশিক মুদ্রাও এসেছে তাদের হাতে।

সমুদ্রপথে পণ্য পরিবহনে বছর শেষে সুখবর আছে। সেটি হলো, দেশে কনটেইনার পরিবহনের ৪৪ বছরের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো চট্টগ্রাম থেকে ইতালির বন্দরে সরাসরি কনটেইনারবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। ইতালির সিভিটাভেক্কিয়া বন্দর থেকে পরীক্ষামূলকভাবে আসা কনটেইনারবাহী জাহাজ ক্যাপ ফ্লোরেন্স ২৩ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম বন্দরের জেটিতে ভিড়েছে। এভাবে পণ্য পরিবহন সেবা যদি সফল হয়, তাহলে কম সময়ে ইউরোপগামী রপ্তানি পণ্য বিদেশি ক্রেতাদের হাতে তুলে দেওয়া সম্ভব হবে।

রপ্তানি পণ্য এখনকার মতো সিঙ্গাপুর বা শ্রীলংকার বন্দর হয়ে ইউরোপে নিতে হবে না। তাতে বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের পোশাকশিল্প আরও এগিয়ে যাবে, এমনই আশা রপ্তানিকারকদের।

জানতে চাইলে বিজিএমইএর প্রথম সহসভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, 'ইউরোপের সঙ্গে সরাসরি কনটেইনার জাহাজ চলাচলের উদ্যোগ বড় সুখবর। এই উদ্যোগ যদি সফল হয় তাহলে পোশাক খাতে বড় অর্জন হয়ে দেখা দেবে।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন