বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এনবিআরের সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা বিষয়টি ব্যাখ্যা করে বলেছেন, পণ্যের মূল্য ট্যাগে ভ্যাটসহ প্রথমে পণ্যের মূল্য লিখতে হবে। একই সঙ্গে ওই পণ্যের দাম, ভ্যাটের পরিমাণ ও সম্পূরক শুল্ক প্রযোজ্য হলে আলাদা করে লিখতে হবে।

যেমন বড় রেস্তোরাঁ বা ফাস্ট ফুডের দোকানে খেতে গেলে খাবার তালিকা নিয়ে আসেনকর্মীরা। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে খাবার তালিকায় মূল্য লেখার পাশাপাশি ‘প্লাস’ শব্দটি লিখে ভ্যাট লেখা হয়। যেমন কোনো খাবারের দাম ১০০ টাকা হলে এর পাশাপাশি ১০ শতাংশ ভ্যাট লেখা থাকে। এর মানে, ওই ভোক্তা খাবার গ্রহণের পর যখন বিল পরিশোধ করেন, তখন ১১০ টাকা পরিশোধ করতে হবে। কিন্তু এখন থেকে সেটি চলবে না। খাবারের মূল্যের সঙ্গেই ভ্যাট যুক্ত করে ওই খাবারের তালিকা ভোক্তার কাছে উপস্থাপন করতে হবে, যেন গ্রাহক প্রথমেই বুঝতে পারেন তাঁকে কত টাকা পরিশোধ করতে হবে।

সাধারণ গ্রাহকেরা খাবার ও পোশাক কেনার পাশাপাশি অনলাইনেও পণ্য কিনে থাকেন। খাবারের মধ্যে এসি রেস্তোরাঁ বা ফাস্ট ফুডে খাবারের ওপর ১০ শতাংশ এবং নন-এসি রেস্তোরাঁয় সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা আছে। নামীদামি শোরুম থেকে পোশাক কিনলে সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট দিতে হবে। অনলাইনে পণ্য কিনলে ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপিত হবে। এখন থেকে এসব ব্যবসায় ভ্যাট যুক্ত করে গ্রাহককে দাম দিতে হবে।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন