বিজ্ঞাপন

আগামী অর্থবছরের এডিপিতে ১০টি বৃহৎ প্রকল্পে মোট ৫৪ হাজার ৪৪৯ কোটি টাকা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র সর্বোচ্চ ১৮ হাজার ৪২৬ কোটি টাকা পেয়েছে। এরপর মাতারবাড়ী বিদ্যুৎকেন্দ্রে ৬ হাজার ১৬২ কোটি টাকা, প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচিতে (পিইডিপি–৪) ৫ হাজার ৫৩ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। অন্য প্রকল্পগুলোর মধ্যে মেট্রোরেল ৪ হাজার ৮০০ কোটি, পদ্মা সেতু রেল সংযোগ ৩ হাজার ৮২৩ কোটি এবং পদ্মা সেতু ৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা পেয়েছে।
আগামী অর্থবছরে, অর্থাৎ ২০২২ সালের ৩০ জুনের মধ্যে ৩৫৬টি প্রকল্পের কাজ শেষ করার জন্য রাখা হয়েছে নতুন এডিপিতে। সরকারি–বেসরকারি অংশীদারত্বের (পিপিপি) মাধ্যমে বাস্তবায়িত হবে ৮৮টি প্রকল্প।

সংবাদ সম্মেলনে এম এ মান্নান জানান, মাথাপিছু জাতীয় আয় ২ হাজার ২২৭ ডলারে উন্নীত হওয়ার পেছনে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও কৃষকদের শ্রম অবদান রেখেছে। প্রবাসী ও কৃষকদের শ্রমের কারণে বাংলাদেশের অর্থনীতি শক্ত ভিতের ওপর দাঁড়িয়েছে এবং টিকে থাকার অবস্থা তৈরি হয়েছে।

করোনার সংক্রমণ ঠেকানোর লক্ষ্যে স্বাস্থ্য খাতের বহুল আলোচিত দুটি প্রকল্পে ২ হাজার ৬৭৬ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, যা টিকাসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য সরঞ্জাম কেনাকাটায় খরচ হবে। গত বছর নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় প্রকল্প দুটিতে আশানুরূপ টাকা খরচ হয়নি।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন