সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সহসভাপতি রেজাউল ইসলাম, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ পোশাক প্রস্তুতকারক মালিক সমিতির সভাপতি আলাউদ্দিন মালিক, মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আজমল হোসেন, টাইলস ডিলারস অ্যান্ড ইমপোর্টার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসুল বেলাল প্রমুখ।

মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, ২০১৯ সালের ভ্যাট আইন অনুযায়ী ভোক্তার কাছ থেকে সরাসরি ভ্যাট আহরণ করবে খুচরা ও পাইকারি প্রতিষ্ঠান। এ জন্য ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে ইএফডি যন্ত্র বসানোর কথা থাকলেও জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এখন পর্যন্ত খুবই অল্পসংখ্যক প্রতিষ্ঠানে তা স্থাপন করতে পেরেছে। ফলে ভ্যাট আদায় নিয়ে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। এ সমস্যা নিরসনে যত দিন পর্যন্ত রাজস্ব বোর্ড সব দোকান ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে ইএফডি মেশিন স্থাপন করতে না পারে, তত দিন পর্যন্ত খুচরা ও পাইকারি পর্যায়ে আরোপিত ৫ শতাংশ ভ্যাটের পরিবর্তে ২ শতাংশ হারে উৎসে ভ্যাট আদায়ের ব্যবস্থা করার দাবি জানান তিনি।

হেলাল উদ্দিন বলেন, নমুনা পরীক্ষা ছাড়াই ভ্রাম্যমাণ আদালতের তাৎক্ষণিক জেল জরিমানার কারণে ক্ষুদ্র ও অতি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন সময়ে নাজেহাল হচ্ছেন। অথচ প্রচলিত আইনেই আইন ভঙ্গকারী ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রমাণ সাপেক্ষে শাস্তির বিধান আছে। তাই ভ্রাম্যমাণ আদালতের আইনটি সংশোধনের দাবি জানান তিনি।

ক্ষুদ্র ও অতি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের ভ্যাটের আওতামুক্ত রাখার কথা থাকলেও ভ্যাটের রিটার্ন জমা না দেওয়ার কারণে এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ও জরিমানা করা হচ্ছে উল্লেখ করে এসব মামলা ও জরিমানা প্রত্যাহারের দাবি জানান হেলাল উদ্দিন ।

অর্থনীতি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন