অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, আগে খাদ্য রপ্তানি করতে গেলে বিদেশ থেকে কর্তৃপক্ষ এসে সনদ দিত। এখন থেকে আর সেটির প্রয়োজন হবে না। বাংলাদেশই আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী সনদ দেবে। এতে করে সারা বিশ্ব জানবে, বাংলাদেশে নিরাপদ খাদ্য পাওয়া যায়। তাতে রপ্তানি আরও ত্বরান্বিত হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে খাদ্যসচিব মো. ইসমাইল হোসেন খাদ্যপণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে সর্বজনস্বীকৃত স্বাস্থ্যসনদ প্রদান করার জন্য আস্থা তৈরির ওপর জোর দেন ও বিএফএসএর ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করার ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অনুষ্ঠানে বিএফএসএর চেয়ারম্যান মো. আবদুল কাইউম সরকার বলেন, খাদ্যপণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে বিএফএসএ প্রদেয় স্বাস্থ্যসনদ দেশের সামগ্রিক রপ্তানি বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

এ সময় ইএসএল বাংলাদেশ লিমিটেড ও ট্রাস্ট অ্যান্ড ট্রেড নামে দুটি কোম্পানিকে স্বাস্থ্যসনদ প্রদান করার মাধ্যমে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়।

বিএফএসএর সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বিশ্বে প্রতিবছর ১০ জনে ১ জন খাদ্যজনিত অসুস্থতায় ভোগেন, ৪ লাখ ২০ হাজার মানুষ মারা যায়। প্রতি তিনজনে একজন শিশু মারা যায় খাদ্যজনিত অসুস্থতায়।

অনুষ্ঠানে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।