বিবিসির সংবাদে ওইসিডিকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় অর্থনীতি আগামী বছর দুর্বল হবে, তবে যুক্তরাজ্য ছাড়া বড় অর্থনীতিগুলোর মধ্যে শুধু জার্মানির জিডিপি সংকুচিত হবে বলে তারা আশঙ্কা করছে। সামগ্রিকভাবে ২০২৩ সালে বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির হার যথেষ্টই কমবে বলে ওইসিডির পূর্বাভাস।

কিছুদিন আগে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) মহাপরিচালক বলেন, বিশ্বের উন্নত অর্থনীতিগুলো আগামী বছর গতি হারাবে। অনেক দেশ মন্দার কবলে পড়বে, কিন্তু সে তুলনায় উন্নয়নশীল দেশগুলো ভালো করবে। ওইসিডি বলছে, এই উন্নয়নশীল অর্থনীতিগুলোর প্রবৃদ্ধির জেরে আগামী বছর বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়াবে ২ দশমিক ২ শতাংশ।

করোনার সময় সামগ্রিকভাবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল উন্নয়নশীল দেশগুলো। অর্থাৎ তখনো সবাই সমানভাবে আক্রান্ত হয়নি, এবারও সেই ধারা দেখা যাচ্ছে।

ওইসিডি বলছে, ইউরোপীয় দেশগুলোই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের সবচেয়ে ভুক্তভোগী।
ওইসিডির পূর্বাভাস, জি–৭–ভুক্ত দেশগুলো, অর্থাৎ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি ও জাপানের অর্থনীতি আগামী বছর দুর্বল হবে। তবে এদের মধ্যে শুধু যুক্তরাজ্য ও জার্মানির অর্থনীতি সংকুচিত হবে। পূর্বাভাস অনুযায়ী, ২০২৩ সালে যুক্তরাজ্যের অর্থনীতি সংকুচিত হবে শূন্য দশমিক ৪ শতাংশ এবং ২০২৩ সালে তাদের প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়াবে মাত্র শূন্য দশমিক ২ শতাংশ।

এর বিপরীতে গত সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের অফিস ফল বাজেট রেসপনসিবিলিটির পূর্বাভাস, আগামী বছর যুক্তরাজ্যের জিডিপি সংকোচন হবে ১ দশমিক ৪ শতাংশ এবং ২০২৪ সালে প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়াবে ১ দশমিক ৩ শতাংশ। তারা আরও বলে, জার্মানির সংকোচনের হার দাঁড়াবে শূন্য দশমিক ৩ শতাংশ।

অন্যদিকে জি–২০–ভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে রাশিয়া এখন বড় ধরনের অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার মুখে আছে। স্বাভাবিকভাবেই তাদের সংকোচনের হার যুক্তরাজ্যের চেয়েও বেশি হবে। ওইসিডির পূর্বাভাস, রাশিয়ার সংকোচনের হার দাঁড়াবে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ।