সফরকালে মার্টিন রেইজার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তাঁরা অর্থনীতির বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন। এ বিষয়ে মার্টিন রেইজার বিবৃতিতে বলেন, বর্তমান প্রবৃদ্ধির ধারাবাহিকতা বজায় রাখা, অনিশ্চয়তার মধ্যে সামষ্টিক অর্থনীতির স্থিতিশীলতা সম্প্রসারণ করা, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে জাতীয় পরিকল্পনাগুলোর মধ্যে সংস্কারকে অগ্রাধিকার দেওয়া প্রয়োজন।

সফরকালে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদারসহ সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। এ ছাড়া তিনি সুশীল সমাজের প্রতিনিধি ও ঢাকায় কার্যরত উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে সভা করেন।

বাংলাদেশের জন্য ২০২৩-২৭ মেয়াদের জন্য নতুন কান্ট্রি পার্টনারশিপ ফ্রেমওয়ার্ক (সিপিএফ) তৈরি করছে বিশ্বব্যাংক। সরকারি পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠককালে ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চমধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হতে কীভাবে বাংলাদেশকে আরও বেশি সহায়তা করা যায়, তা নিয়ে মার্টিন রেইজার আলোচনা করেন। তিনি বলেন, অন্য দেশগুলো বাংলাদেশের উন্নয়ন অভিজ্ঞতার বিষয়ে শিখতে পারে। টেকসই ও অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশকে সহায়তা দিতে বিশ্বব্যাংক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন