বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তহবিলটিকে স্থায়ী আকারে রূপান্তর করতে বিএসইসি গত জুনে যে চিঠি পাঠিয়েছিল আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগে, সেটির পরিপ্রেক্ষিতেই গত ১৭ আগস্ট বৈঠকটি ডাকা হয়। ওই চিঠিতে ঋণ পরিশোধের সময়সীমা ২০২৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাড়ানোর দাবি জানানো হয়েছিল।

সূত্র জানায়, বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকের উপমহাব্যবস্থাপক আমিনুর রহমান চৌধুরী বলেন, বর্তমানে তহবিলটি ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সহায়তার পরিবর্তে বাজার স্থিতিশীলতার জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে। পুঁজিবাজারে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ দরকার। ফলে স্থায়ী তহবিল গঠন করলে পুঁজিবাজারের দুঃসময়ে ব্যবহার করা যাবে।

মার্চেন্ট ব্যাংক, ব্রোকার হাউস বা বহুজাতিক কোম্পানি তহবিল থেকে ঋণ নিয়ে ফেরত দিতে দেরি করলে জরিমানার বিধান চালুর প্রস্তাবও দেন আমিনুর রহমান চৌধুরী।

ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশের (আইসিবি) ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল হোসেন স্থায়ী তহবিল গঠনের পক্ষে মত দেন।

পুঁজিবাজারে ২০১০ সালের ধসে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সহায়তা করতে ২০১৩ সালে ৯০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করা হয়।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মফিজ উদ্দীন আহমেদ গতকাল বুধবার প্রথম আলোকে বলেন, আপাতত স্থায়ী তহবিল না হলেও এর মেয়াদ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে অর্থ বিভাগের মতামত নেওয়ার পর।

শেয়ারবাজার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন