বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, নিয়ন্ত্রক সংস্থার সার্ভিল্যান্স ব্যবস্থায় গত কয়েক দিনে বিভিন্ন ব্রোকারেজ হাউসের শেয়ার বিক্রি ও লেনদেন পর্যবেক্ষণ করে আকস্মিক পরিদর্শনের এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। গত কয়েক দিনে যেসব ব্রোকারেজ হাউস থেকে আগ্রাসীভাবে শেয়ার বিক্রি করা হয়েছে, শুরুতে সেসব প্রতিষ্ঠানকে পরিদর্শনের আওতায় আনা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলো সিকিউরিটিজ আইন মেনে যথাযথভাবে শেয়ার বিক্রি বা লেনদেন করছে কি না, শেয়ারের দাম বসানোর ক্ষেত্রে অথরাইজড রিপ্রেজেনটেটিভ বা ট্রেডাররা সংশ্লিষ্ট বিধিবিধান মানছেন কি না, তা খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে পরিদর্শনে নিয়োজিত বিএসইসির কর্মকর্তাদের।

জানতে চাইলে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম প্রথম আলোকে বলেন, বাজারে শেয়ার বিক্রির চাপ অনেক বেড়ে গেছে। প্রতিষ্ঠানগুলো যথাযথ নিয়ম মেনে লেনদেন করছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে আকস্মিক পরিদর্শনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যেসব প্রতিষ্ঠান থেকে আগ্রাসীভাবে শেয়ার বিক্রি করা হচ্ছে, ধাপে ধাপে সেসব প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনে যাবে বিএসইসির দল। পরিদর্শনে কোনো অনিয়ম পাওয়া গেলে দ্রুত তাদের শাস্তির আওতায় আনা হবে।

এদিকে গতকালও শেয়ারবাজারে বড় ধরনের দরপতন হয়েছে। দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এদিন ৭৪ পয়েন্ট বা সোয়া ১ শতাংশ কমে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৩৮ পয়েন্টে। ঢাকার বাজারে এদিন লেনদেন হওয়া ৩৮০ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাত্র ১৭টি বা সাড়ে ৪ শতাংশের দাম বেড়েছে। কমেছে ৩৩৮টির বা ৮৯ শতাংশের আর অপরিবর্তিত ছিল ২৫টির বা সাড়ে ৬ শতাংশের দাম।

সূচক ও বেশির ভাগ শেয়ারের দাম কমার পাশাপাশি কমে গেছে লেনদেনের পরিমাণও। ডিএসইতে গতকাল দিন শেষে লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৭৭৮ কোটি টাকা, যা আগের দিনের চেয়ে ৬০ কোটি টাকা কম।

শেয়ারবাজার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন