ডিএসইতে গতকাল ওরিয়ন ফার্মার শেয়ার লেনদেনের মূল্যমান ছিল ৩২৭ কোটি টাকা। ডিএসই ও কোম্পানি সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩ সালে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্তির পর এই প্রথমবারের মতো এক দিনে ওরিয়ন ফার্মার শেয়ারের লেনদেন ৩০০ কোটি টাকা ছাড়াল।

এদিকে ডিএসইতে গতকাল এ দুটি কোম্পানির সম্মিলিত লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ৬৬৯ কোটি টাকা, যা ডিএসইর মোট লেনদেনের প্রায় ২৪ শতাংশ। অথচ এক মাস আগেও বাজারে মোট লেনদেনের পরিমাণ ছিল সাড়ে ৬০০ কোটি টাকার নিচে। বেক্সিমকো ও ওরিয়ন গ্রুপের তালিকাভুক্ত অন্যান্য কোম্পানির লেনদেন বিবেচনায় নিলে দুই গ্রুপের পাঁচ কোম্পানির মোট লেনদেন দাঁড়ায় ৮০৫ কোটি টাকা, যা ডিএসইর এদিনের মোট লেনদেনের ২৮ শতাংশ।

বর্তমানে শেয়ারবাজারে বেক্সিমকো গ্রুপের তিনটি ও ওরিয়ন গ্রুপের দুটি কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়। বেক্সিমকো গ্রুপের কোম্পানি তিনটি হলো বেক্সিমকো লিমিটেড, বেক্সিমকো ফার্মা ও শাইনপুকুর সিরামিকস। আর ওরিয়ন গ্রুপের কোম্পানি দুটি হলো ওরিয়ন ফার্মা ও ওরিয়ন ইনফিউশনস।

বাজারসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, বেশ কিছুদিন ধরে শেয়ারবাজারের লেনদেন এ দুই গ্রুপকেন্দ্রিক হয়ে গেছে। তাতে অন্যান্য শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ কমছে। ফলে দেখা যাচ্ছে, লেনদেন হওয়া বেশির ভাগ কোম্পানিরই শেয়ারের দরপতন হচ্ছে। কারণ, বেশির ভাগ বিনিয়োগকারী অন্যান্য শেয়ার বিক্রি করে নির্দিষ্ট কিছু কোম্পানির শেয়ারের প্রতি ঝুঁকছেন।

ঢাকার বাজারে গতকাল ৩৭৩ কোম্পানির শেয়ারের হাতবদল হয়েছে। এর মধ্যে দাম বেড়েছে ৭২টির, কমেছে ১৫৬টির আর অপরিবর্তিত ছিল ১৪৫টির।

এক বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ লেনদেন

এই দুই গ্রুপের মধ্যে গতকাল বেক্সিমকোর তিন কোম্পানির সম্মিলিত লেনদেনের পরিমাণ ছিল ৪৪৯ কোটি টাকা। আর ওরিয়নের দুই কোম্পানির মোট লেনদেনের পরিমাণ দাঁড়ায় ৩৫৬ কোটি টাকা। এ দুই গ্রুপের ওপর ভর করে ঢাকার বাজারে গতকাল মোট ২ হাজার ৮৩২ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়, যা আগের দিনের চেয়ে ৮৪২ কোটি টাকা বেশি। এক বছরের মধ্যে এটিই ডিএসইতে সর্বোচ্চ লেনদেন। এর আগে সর্বশেষ গত বছরের ৭ সেপ্টেম্বর ডিএসইতে ২ হাজার ৮৬৬ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছিল।

শেয়ারবাজার থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন