টিসিবির হিসাবে এক সপ্তাহ আগে এসব চালের মধ্যে মোটা চালের দাম ছিল একই—কেজিপ্রতি ৪৮ থেকে ৫২ টাকা। তবে মাঝারি চালের কেজি ছিল ৫২ থেকে ৫৮ টাকা এবং সরু চাল ৬৪ থেকে ৭৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।

নিউমার্কেটের কাঁচা বাজারের বাংলাদেশ রাইস এজেন্সির মো. আজাদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলেছেন, লোডশেডিংয়ের কারণে মিলমালিকদের বিকল্প উপায়ে ধান থেকে চাল করতে হচ্ছে। তাতে উৎপাদন খরচ বাড়ায় চালের দাম আরও বাড়তে পারে। এদিকে আমদানি কম হচ্ছে। যেটুকু বাজারে এসেছে, সেটাও দেশি চালের দামের প্রায় সমান। এতে করে বাজারে প্রভাব নেই।’

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ২৩ জুলাই থেকে গতকাল পর্যন্ত মাত্র ২৯টি ট্রাকে ১ হাজার ১১৪ মেট্রিক টন চাল আমদানি হয়েছে।

কমছে মাছের দাম

বাজারে ইলিশের সরবরাহ বাড়তে থাকায় মাছের দাম কমতে শুরু করেছে। ৬০০ থেকে ১ হাজার টাকার মধ্যে ৫০০ থেকে ৭০০ গ্রামের ইলিশের কেজি বিক্রি হচ্ছে। তবে এক কেজির বেশি ওজনের ইলিশের দাম আরেকটু বেশি।

ঢাকার বাজারে ইলিশ আসতে শুরু করায় অন্যান্য মাছের দাম কমতে শুরু করেছে উল্লেখ করে মহাখালী কাঁচাবাজারের মাছ ব্যবসায়ী শামীম হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘ইলিশ বাজারে আসতে শুরু করেছে। তবে এখনো অনেক বেশি যে আসছে, তা নয়। বাজারে মাছের সরবরাহ আরও বাড়লে দাম স্বাভাবিকভাবে আরেকটু কমে আসবে।’

বাজারে ছোট আকারের রুই মাছের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৩০ থেকে ২৮০ টাকায়। বড় আকারের রুইয়ের কেজি পাওয়া যাচ্ছে ৩৫০ টাকার মধ্যে। চাষের কই বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা কেজিতে। তেলাপিয়া ১৪০ থেকে ১৬০ টাকা, পাঙাশ ১৫০ থেকে ১৮০ টাকা, মাঝারি আকারের বাগদা চিংড়ি বিক্রি হচ্ছে ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি দরে।

মুরগি ও গরুর মাংসের দাম অনেকটাই অপরিবর্তিত। ব্রয়লার মুরগির কেজি ১৪০ থেকে ১৬০ টাকা। লেয়ার মুরগির কেজি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা। আর গরুর মাংস পাওয়া যাচ্ছে ৬৫০ থেকে ৭০০ টাকা কেজিতে। বাজারে প্রতি ডজন মুরগির ডিমের (লাল) দাম ১২০ টাকা। তবে পাড়া-মহল্লার দোকানে তা বিক্রি হচ্ছে ১২৫ থেকে ১৩০ টাকা।

৪০ থেকে ৬০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে প্রায় সব ধরনের সবজি। কাঁচা মরিচের দামটা এখনো বাড়তি। কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকা কেজি।

বাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন