কেক বাই রুমানার উদ্যোক্তা রুমানা হালিম বলেন, ‘বেশ জমকালো একটা আয়োজন ছিল। সবাই ঘরোয়া আমেজে আনন্দ করেছি।’

আয়োজনের অন্যতম আকর্ষণ ছিল দেশীয় নারী উদ্যোক্তাদের পণ্য নিয়ে বিশেষ ও ব্যতিক্রমী ফ্যাশন শো। চামড়াজাত পণ্যের প্রতিষ্ঠান ট্যানের স্বত্বাধিকারী ও ডিজাইনার তানিয়া ওয়াহাবের কোরিওগ্রাফি ও পরিচালনায় এ ফ্যাশন শোতে তুলে ধরা হয় বাংলার ছয় ঋতুতে ব্যবহারের উপযোগী দেশীয় চামড়ার তৈরি ব্যাগ, ওয়ালেট, ল্যাপটপ ব্যাগ, স্কুলব্যাগ-নারী, পুরুষ ও শিশুদের জন্য।

ফ্যাশন শোতে ছয়জন নারী উদ্যোক্তার তৈরি সামগ্রী উপস্থাপন করা হয়। লেদার ক্র্যাফট অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সহযোগিতায় ফ্যাশন শোতে ছিল তাসনিয়া ইরার দ্য হকার্স, মাকসুদা খাতুনের শাবাব লেদার, তাহমিনা আক্তারের অ্যানেক্স লেদার, মাসুদা পারভিন ঊর্মির স্মার্ট লেদার প্রোডাক্টস, তাসলিমা মিজির গুটিপা ও তানিয়া ওয়াহাবের ট্যানের সামগ্রী।

ফ্যাশন প্যারেডে অংশ নেন মাটি, অরোরা, অরিত্রি, জাসিয়া, লিজা, আইমান, আরিয়ান, অনিক ও রাজ্জাক। শো স্টপার ছিলেন নাহিদ সুলতানা রাখি আর তাঁদের সাজিয়েছেন মেকআপ আর্টিস্ট নিদিয়া আফরোজ।

ফ্যাশন শোর সমন্বয়ক তানিয়া ওয়াহাব মনে করেন, অত্যন্ত উপভোগ্য ও প্রাণবন্ত অনুষ্ঠান হয়েছে, যেখানে সবার সরব অংশগ্রহণ ছিল। ভবিষ্যতে এমন আয়োজন আরও বড় পরিসরে করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

এ ছাড়া আলাদা একটি ফ্যাশন প্যারেডে নিজেদের ডিজাইন করা পোশাক নিয়ে প্যারেড করেন ফারহানাস ড্রিমের উদ্যোক্তা ফারহানা আক্তার, ডিএস ক্রিয়েশনের ওয়াকিমুন্নেসা ওমেনা ও আইক্লের শিলা আক্তার।

অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন কনিকাস হেঁশেলের উদ্যোক্তা কামরুন নাহার ও মাসুদ রানা। গান শোনান কটন অ্যান্ড বাটনের পাপিয়া হাসনা, সুতা কথন নারী উন্নয়ন সংস্থার জান্নাতুল ফেরদৌসী, পাপিয়া ইকবাল ও অনামিকা।

‘বাংলাদেশের মেয়ে’ এই গানের সঙ্গে বিএসডিআইয়ের ফারহানা একা নাচতে শুরু করলেও পরে একে একে তাঁর সঙ্গে অন্য উদ্যোক্তারাও যোগ দেন।

ডিএস ক্রিয়েশনের উদ্যোক্তা ওয়াকিমুন্নেসা ওমেনা আয়োজনের ফ্যাশন শো পর্বে নিজের উদ্যোগের হাতের কাজের পোশাক পরে অংশগ্রহণ করেন। তিনি বলেন, ‘গৎবাঁধা আয়োজনের মতো ছিল না, বরং সবাই নিজেদের মতো করে দিনটি উদ্‌যাপন করতে পেরেছি। মনে হচ্ছিল, প্রকৃত অর্থেই গতকালের নারী উদ্যোক্তা দিবস আমাদের জন্যই।’

চাইল্ডহুড টেলের উদ্যোক্তা জাকিয়া সুলতানা বলেন, এটাই ছিল উদ্যোক্তা জীবনের প্রথম কোনো পাবলিক ইভেন্ট, যেখানে নেটওয়ার্কিংয়ের বড় সুযোগ পেয়েছেন তিনি।

উদ্‌যাপনের সমন্বয়কারী শৈলী স্টুডিওর স্বত্বাধিকারী ও ডিজাইনার তাহমিনা শৈলী সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, নিজের উদ্যোগ ছাড়া নারী উদ্যোক্তাদের সংসারও সামলাতে হয়। এর মধ্যে ষষ্ঠবার এমন আয়োজন করা হলো।

নারী উদ্যোক্তাদের এ মিলনমেলায় আরও উপস্থিত ছিলেন ড্যাফোডিল গ্রুপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইনোভেশন অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ ডিপার্টমেন্টের বিভাগীয় প্রধান মো. কামরুজ্জামান দিদার, এফ এম প্লাস্টিকের উদ্যোক্তা মুহম্মদ গাজী তৌহিদুর রহমান, ই-কুরিয়ারের প্রধান নির্বাহী বিপ্লব ঘোষ, ম্যাজিক রুটি মেকারের উদ্যোক্তা জাহিদুল ইসলাম, চাকরি খুঁজব না চাকরি দেব গ্রুপের পরিচালক সাজ্জাত হোসেন, প্রথম আলোর ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন ও যুব কার্যক্রমের প্রধান সমন্বয়কারী মুনির হাসান প্রমুখ।

উদ্যমী নারীদের নেটওয়ার্ক সাহসিকা, উদ্যোক্তাদের নেটওয়ার্ক চাকরি খুঁজব না চাকরি দেব, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইনোভেশন অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ ডিপার্টমেন্ট, গ্লোবাল এন্ট্রাপ্রেনিউরশিপ নেটওয়ার্কের বাংলাদেশ কমিটি ও বাংলাদেশ স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট এ অনুষ্ঠান আয়োজন করে। সহযোগিতায় ছিল ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিউট, কাজ ৩৬০, আর্টেমিস লিমিটেড ও নিজল ক্রিয়েটিভ ফটোগ্রাফি।

আয়োজনের লোগো বোর্ড ও উপহারের সহযোগিতায় ছিল উইমেন অ্যান্ড ই-কমার্স, আমারপে, আফ্রাজান, এনেক্স লেদার, বিডিপ্রেনার, বাবুর হাসি, বায় স্মার্ট, কফিওয়ালা, ক্রিয়েটিভ সফট টেকনোলজি লিমিটেড, ডায়না হোস্ট, ধবল, ইভা ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং বাদশা মিলস, ফ্লিট বাংলাদেশ, ফুডার, ইচ্ছে তাই, জারা ফ্যাশন, কারুকার্য, কে–ক্র্যাফট, কে এম তাহের ফটোগ্রাফি, খেয়ালি, মেকআপ বাই নিদিয়া, নবারুণ ইন্টারন্যাশনাল, এনজে ইট অ্যান্ড ফিট, পদ্ম, পঞ্চদশ, পারফেকশন অব পরিণীতা, রব বাই শমসাদ, রূপ বাংলাদেশ, শাবাব লেদার, শপ কুইন, শৈলী, সুতা কথন, ট্যান, টেকভিশন, উৎসব, উইনারস কুরিয়ার লিমিটেড ও কে-ক্র্যাফট।