default-image

করোনাভাইরাসের প্রকোপ থেকে মার্কিন অর্থনীতিকে রক্ষা করতে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ১ দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলারের প্রণোদনা প্রস্তাব কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটেও পাস হয়েছে। স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার সিনেটে এটি পাস হয়। তবে রিপাবলিকান পার্টির সিনেটরদের প্রত্যেকেই এই বিলের বিরোধিতা করেন। সিনেটে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের প্রস্তাবিত করোনা প্যাকেজ নিয়ে ভোটাভুটিতে পক্ষে ভোট পড়ে ৫০টি। বিপক্ষে পড়ে ৪৯টি ভোট। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

সিনেট অনুমোদনের পর এবার বিলটি আবার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভে ফিরে যাবে। হাউস অব রিপ্রেজেনটেটিভের নিয়ন্ত্রণ ডেমোক্র্যাটদের হাতে। সেখানে আগামী মঙ্গলবার এটি পাস হতে পারে। গত সপ্তাহে সেখানে এই প্যাকেজেরই কিছুটা ভিন্ন রূপ অনুমোদন পেয়েছিল।

বাইডেন সিনেটের ভোটকে জনগণের সহায়তার প্রতিশ্রুতি দেওয়ার ক্ষেত্রে আরও ‘একটি বৃহৎ পদক্ষেপ’ হিসাবে বর্ণনা করেছেন।

এক শতাব্দীর মধ্যে সবচেয়ে খারাপ জনস্বাস্থ্য সংকটে যুক্তরাষ্ট্র। করোনায় দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৫ লাখ ২৩ হাজারের বেশি মারা গেছেন। আক্রান্ত হয়েছে প্রায় ২ কোটি ৯০ লাখ মানুষ। একই সঙ্গে গত প্রায় এক বছরে বিপর্যস্ত হয়েছে মার্কিন অর্থনীতি। মানুষ কাজ হারিয়েছেন। বেতন কমে গেছে। ঘরবন্দী থাকতে হওয়ায় বহু মানুষের ব্যবসার ক্ষতি হয়েছে। দেশটিতে বর্তমানে বেকারত্বের হার ৬ দশমিক ২ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

নতুন প্রণোদনা প্যাকেজের পরিকল্পনা অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের পরিবারগুলোর জন্য বরাদ্দ থাকছে এক ট্রিলিয়ন ডলার। যেখানে প্রত্যেক মার্কিন নাগরিক যাঁদের বার্ষিক আয় ৭৫ হাজার ডলারের কম, তাঁদের সরাসরি দেওয়া হবে ১ হাজার ৪০০ ডলার করে। এ ছাড়া করোনা মহামারি মোকাবিলায় ৪১ হাজার ৫০০ কোটি ডলার এবং ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য দেওয়া হবে ৪৪ হাজার কোটি ডলার। এ ছাড়া রাজ্য ও মিউনিসিপ্যালটি তহবিল এবং স্কুল ও করোনার টিকাদান কর্মসূচিতে প্রণোদনা দেওয়া হবে। প্রণোদনা প্রস্তাবের পরিবর্তন-সংশোধনের পর সিনেটে ভোটাভুটিতে এই বিল পাস হয়।

তবে রিপাবলিকানের বক্তব্য হচ্ছে এই পরিকল্পনা খুবই ব্যয়বহুল। কিছু ডেমোক্র্যাটও এই প্যাকেজের বিষয়ে সমালোচনা করেছিলেন। সাম্প্রতিক সময়ে ডেমোক্র্যাটরা সিনেটে নতুন নাগরিক প্রণোদনা প্রস্তাব নিয়ে ভোট আহ্বান করেন। কিন্তু ডেমোক্র্যাট সিনেটর মানচিন ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, তিনি এই প্রস্তাব নয়, বরং রিপাবলিকানদের প্রস্তাব সমর্থন করেন। এ নিয়ে তাঁর সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা চলে। শেষমেশ তিনি ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বেকারদের সপ্তাহে অতিরিক্ত ৪০০ ডলারের পরিবর্তে ৩০০ ডলার দেওয়ার পক্ষে মত দেন।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন