বিজ্ঞাপন

জং শানশানকে আগেই পেছনে ফেলেছিলেন ভারতীয় ধনকুবের, রিলায়েন্স গ্রুপের কর্ণধার মুকেশ আম্বানি। বর্তমানে আম্বানির সম্পদের পরিমাণ ৭ হাজার ৬৫০ কোটি ডলার। অন্যদিকে আদানির সম্পদের পরিমাণ ৬ হাজার ৬৫০ কোটি ডলার। এ বছর আদানির সম্পদ বেড়েছে ৩ হাজার ২০৭ কোটি ডলার।

গতকাল বৃহস্পতিবার আদানি গ্রুপের ছয়টি কোম্পানির বাজার মূলধন ৮ দশমিক ৩৬ ট্রিলিয়ন হয়েছে। অন্যদিকে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের বাজার মূলধনের পরিমাণ ১২ দশমিক ৬ ট্রিলিয়ন ডলার।

পণ্য ব্যবসায়ী হিসেবে জীবন শুরু করা গৌতম আদানি শক্তি, সংস্থান, বন্দর, রসদ, কৃষিক্ষেত্র, রিয়েল এস্টেট, আর্থিক পরিষেবা, গ্যাস বিতরণ, প্রতিরক্ষা ব্যবসা, বিমানবন্দরসহ অনেক ব্যবসার মালিক।

আদানির সম্পদ বাড়ার অন্যতম কারণ হলো এ বছর তাঁর সংস্থার শাখাগুলোর শেয়ারের আকাশছোঁয়া বৃদ্ধি। যেমন আদানি গ্রিন, আদানি এন্টারপ্রাইজেস, আদানি গ্যাস ও আদানি ট্রান্সমিশনের শেয়ারের দর বেড়েছে।

ভারতীয় গণমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের পর থেকে আদানির মোট গ্যাসের শেয়ারের পরিমাণ ১ হাজার ১৪৫ শতাংশ বেড়েছে। আদানি এন্টারপ্রাইজেস ও আদানি ট্রান্সমিশনের শেয়ার যথাক্রমে ৮২৭ শতাংশ ও ৬১৭ শতাংশ বেড়েছে। একই সময়ে আদানি গ্রিন এনার্জি ও আদানি পাওয়ার যথাক্রমে ৪৩৩ শতাংশ ও ১৮৯ শতাংশ বেড়েছে বলে জানা গেছে।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন