default-image

করোনাভাইরাসের প্রভাব কাটিয়ে দুই দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ রপ্তানি করেছে চীন। আজ রোববার দেশটির সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী আমদানিও ঘুরে দাঁড়িয়েছে দেশটির। মহামারির সময়ে ইলেকট্রনিক পণ্য ও টেক্সটাইলের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এটি রপ্তানি বৃদ্ধিতে বড় ভূমিকা রেখেছে। কারণ, মহামারির সময়ে ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গৃহস্থালি পণ্য ও প্রতিরক্ষামূলক পণ্যের চাহিদা বিশ্বব্যাপীই ব্যাপক বেড়ে যায়।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এ বছরের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারিতে চীনের রপ্তানি বেড়েছে ৬০ দশমিক ৬ শতাংশ, যা বিশ্লেষকদের প্রত্যাশার চেয়েও অনেক বেশি। ইলেকট্রনিকস ও মাস্কের রপ্তানি বেড়েছে ব্যাপক পরিমাণে। এ ছাড়া আমদানি বেড়েছে ২২ দশমিক ২ শতাংশ। শুল্ক প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী, চীনের সামগ্রিক বাণিজ্য উদ্বৃত্ত হয়েছে ১০৩ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

সরকারি তথ্য থেকে দেখা গেছে, ইলেকট্রনিকস পণ্যের রপ্তানি বেড়েছে ৫৪ দশমিক ১ শতাংশ। মাস্কসহ টেক্সটাইল পণ্যের রপ্তানি বেড়েছে ৫০ দশমিক ২ শতাংশ।
চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনার সংক্রমণ শুরু হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়, পরে যা বিশ্বের সবখানে ছড়িয়ে পড়ে। গত এক বছরে মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে বিশ্ব অর্থনীতির। তবে করোনার প্রভাব সবার আগে কাটিয়ে উঠেছে চীন। গত বছর বড় অর্থনীতির মধ্যে কেবল চীনই প্রবৃদ্ধির ধারায় ছিল।

বিজ্ঞাপন
বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন