default-image

মার্কিন নির্বাচনকে ঘিরে এখনো চাঙা রয়েছে বিশ্ব শেয়ারবাজার। আজ বৃহস্পতিবার এশিয়ার পুঁজিবাজারে ঊর্ধ্বগতি রয়েছে, সেই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের পুঁজিবাজারও ইতিবাচক থাকবে এমন পূর্বাভাস দেওয়া হচ্ছে। গণমাধ্যম সিএনএনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

সূচক বেড়ে এশিয়ার শেয়ারবাজার আজ তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠে এসেছে। আজ লেনদেনের শুরুতে সূচক বেড়েছে হংকংয়ের পুঁজিবাজারে। হ্যাংসেং সূচক শুরুতেই বাড়ে ২ শতাংশ। এ ছাড়া দক্ষিণ কোরিয়ার কোসপি সূচক বেড়েছে দেড় শতাংশ, জাপানের নিকেই বেড়েছে ১ দশমিক ২ শতাংশ, চীনের সাংহাই কম্পোজিট সূচক বেড়েছে ১ শতাংশ। সূচক বেড়েছে চীনের চিপ নির্মাতা কোম্পানিগুলোর।

গতকাল বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের পুঁজিবাজারেও সূচক ব্যাপক বাড়তে দেখা যায়। ডাও জোনস সূচক ৩৬৮ পয়েন্ট বেড়েছে, এসঅ্যান্ডপি ৫০০ সূচক বেড়েছে ২ দশমিক ২ শতাংশ, নাসডাক বেড়েছে ৩ দশমিক ৯ শতাংশ। এ ছাড়া আজকেও ডাও ফিউচারে বলা হচ্ছে, সূচকটি ৭৯ পয়েন্ট বাড়বে। বাড়বে অন্য দুটি সূচকও।

বিজ্ঞাপন

সাধারণত মার্কিন নির্বাচনের ফলাফল পেতে দেরি হলে, তা পুঁজিবাজারে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। তবে এবার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এবারের এই বিলম্বে আরও উৎসাহ পাচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা, যার ইতিবাচক প্রভাবই পড়ছে পুঁজিবাজারে।

রিপাবলিকানরা সিনেট ধরে রাখলে তারা জো বাইডেনের ব্যয়ের অ্যাজেন্ডা বাদ দেবে। সেই সঙ্গে রাজস্ব প্রণোদনা এবং কোনো করপোরেট ট্যাক্স বৃদ্ধি পাবে না—এ সবকিছু বিবেচনায় নিচ্ছেন বিনিয়োগকারীরা।

মন্তব্য পড়ুন 0