default-image

ঐতিহাসিক বা বিরল জিনিসের মূল্য অনেক। সাধারণের পক্ষে তা কেনা সম্ভব নয়। তবে এবার এক ঐতিহাসিক জিনিসের আইপিও শেয়ার ছাড়া হচ্ছে। ফলে সাধারণ মানুষও তা কিনতে পারবেন।

সিএনএনের এক সংবাদের তথ্য অনুযায়ী, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র বহুমূল্য জিনিসের বাজারে আসছে। র‍্যালি নামের এক ট্রেডিং অ্যাপ এটি বাজারে নিয়ে আসছে। এই অ্যাপের মাধ্যমে মূলত ধ্রুপদি গাড়ি, বেসবল কার্ড ও নানা ধরনের স্মৃতিস্মারক বিক্রি হয়। তারা এবার ১৭৭৬ সালে রচিত যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রের ৮০ হাজার শেয়ার বাজারে ছাড়ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের এই স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রটি অত্যন্ত বিরল এক নথি। এখন এর মাত্র ২০টি কপি আছে। এর আগে ফিলাডেলফিয়ার ন্যাশনাল কনস্টিটিউশন সেন্টারে প্রদর্শিত হয়েছে। এখন তার শেয়ার ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছে র‍্যালি। প্রতিটি শেয়ারের মূল্য দাঁড়াবে ২৫ ডলার। তাতে আইপিও বা প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মূল্যমান দাঁড়াবে ২০ লাখ ডলার।
যুক্তরাষ্ট্রে এমন সংগ্রহযোগ্য জিনিসের কদর বাড়ছে। তবে মহামারির কারণে গত বছর এই বাজার ধ্বংসের মুখে পড়ে।

তবে এই ধরনের পণ্যে বিনিয়োগ করা সব সময়ই ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করেন বিশ্লেষকেরা। এই ধরনের বিরল জিনিস থেকে তো টাকায় আয় হয় না। এটা তো আর স্টক বা বন্ড নয়। ফলে স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রের মতো বিরল জিনিসের মূল্য নির্ধারণ অত্যন্ত বিষয়গত। এর মূল্য সাংস্কৃতিক ও সামাজিক।

বিজ্ঞাপন
র‍্যালি বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র তাদের প্ল্যাটফর্মে বিক্রি হওয়া সবচেয়ে দামি জিনিস। এর আগে হাতে বানানো অ্যাপল-১ কম্পিউটার ছিল তাদের প্ল্যাটফর্মে বিক্রীত সবচেয়ে দামি পণ্য। তবে স্বাধীনতার এই ঘোষণাপত্রটি মূল কপি নয়। মূল কপিটি ওয়াশিংটনের ন্যাশনাল আর্কাইভে সংরক্ষিত আছে।

বিশ্লেষকেরা বলেন, এ ধরনের সংগ্রহ বস্তুর সমস্যা হচ্ছে, এগুলো যে দীর্ঘদিন জনপ্রিয়তা ধরে রাখবে, তার নিশ্চয়তা নেই। ফলে কেউ সঠিক সংগ্রহ বস্তু কিনলে অনেক টাকা বানাতে পারবেন, আবার কেউ যদি উপভোগ্য ভেবে এ ধরনের বস্তু কেনেন, তাহলে ধরা খাওয়ার আশঙ্কা আছে।

র‍্যালি বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র তাদের প্ল্যাটফর্মে বিক্রি হওয়া সবচেয়ে দামি জিনিস। এর আগে হাতে বানানো অ্যাপল-১ কম্পিউটার ছিল তাদের প্ল্যাটফর্মে বিক্রীত সবচেয়ে দামি পণ্য। তবে স্বাধীনতার এই ঘোষণাপত্রটি মূল কপি নয়। মূল কপিটি ওয়াশিংটনের ন্যাশনাল আর্কাইভে সংরক্ষিত আছে। র‍্যালি যে কপিটির শেয়ার বিক্রি করছে, তার মাত্র ২০টি কপি আছে এখন।

অন্যান্য সংগ্রহ বস্তুর মতো র‍্যালি বিশেষজ্ঞদের দিয়ে এই কপির সত্যাসত্য নিরূপণ করেছে। শেয়ারের বিমা করে রেখেছে তারা, যাতে বিনিয়োগকারীরা ক্ষতির মুখে না পড়েন। র‍্যালি মূলত বিক্রীত বস্তুর ক্রয়মূল্যের ৭ শতাংশ সোর্স ফি আরোপ করে এবং আইপিওর ১ থেকে ৫ শতাংশ নিজেরা রেখে দেয়।

বিশ্ববাণিজ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন