রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে গেলে চীনসহ বিশ্বের অনেক দেশ জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন উৎস থেকে জ্বালানি তেল সংগ্রহে সচেষ্ট হয়। তারা সরাসরি রাশিয়ার কাছ থেকে কম দামে তেল কিনেছে। আবার এখন সৌদি আরবের কাছ থেকে তেল কিনছে।

 সম্প্রতি জানা গেছে, সৌদি আরব সফরে যেতে পারেন চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং। তাঁর সফর ঘিরে একটি সম্মেলন আয়োজনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফয়সাল বিন ফারহান এসব কথা জানান। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সূত্রের বিশ্লেষণ, এই সফরে সৌদি আরবের সঙ্গে চীনের জ্বালানি বাণিজ্য আরও দৃঢ় ভিত্তি লাভ করতে পারে।

সৌদি আরব ও ইউয়ানের শক্তি

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর রাশিয়ার কাছ থেকে রুবল ও ইউয়ানে তেল কিনতে শুরু করে চীন।এতে চীনা মুদ্রা ইউয়ান শক্তিশালী হয়।তবে বিশ্লেষকেরা মনে করছেন, সৌদি আরব চীনের কাছে ইউয়ানে তেল বিক্রি করলে চীনা মুদ্রা আরও শক্তি পাবে।

মোদ্দাকথা, দীর্ঘ মেয়াদে ইউয়ানকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রধান মুদ্রা হতে হলে সৌদি আরবের সহায়তা দরকার হবে।মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি ইউয়ান গ্রহণ করলে রাতারাতি জ্বালানি বাণিজ্যের নিয়ামকে পরিণত হবে চীনের মুদ্রা।রিয়াদ যদি চীনা মুদ্রাকে গ্রহণ করে, তাহলে এই অঞ্চলের অন্য দেশগুলোও তাকে অনুসরণ করবে।