বিজ্ঞাপন

মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে অভূতপূর্ব উন্নয়নকাজ চলমান। আমরা যদি আমাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করি, তাহলে ২০৪১ সালের আগেই উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব।’ এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পদ্মা সেতু চালু হলে দক্ষিণাঞ্চলে অসংখ্য শিল্প-কলকারখানা গড়ে উঠবে। এতে দেশের জিডিপি ১ শতাংশ বাড়বে। দেশে ১০০টি ইকোনমিক জোন করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, এসবের কারণে দেশে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড অনেক গুণ বেড়েছে। লক্ষ্যে পৌঁছানো সময়ের অপেক্ষামাত্র।

ভালো কাজের পুরস্কার এবং খারাপ কাজের জন্য তিরস্কারের নীতি অনুসরণের কথা জানিয়ে নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনের মাধ্যমে দেশ ও জাতির কল্যাণ করাই জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, পদোন্নতির জন্য কাজ নয়, বরং ভালো কাজ করে পদোন্নতি পাওয়ার অধিকারী হতে হবে। নিয়োগপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের দেশের উন্নয়নের কান্ডারি উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, দেশকে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়নের শিখরে নিতে হলে কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষ, ধর্ম-বর্ণ–গোত্রনির্বিশেষে সবাই মিলে একসঙ্গে দেশের জন্য কাজ করতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ করতে হবে। কাজ আরম্ভ করে দীর্ঘদিনে তা সম্পন্ন না করে মানুষের জন্য দুর্ভোগ সৃষ্টি করা কোনোভাবেই কাম্য নয়।

এর আগে মন্ত্রী তাজুল ইসলাম জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান এবং তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করেন।
এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী মো. আবদুর রশিদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের জেষ্ঠ্য সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। এ ছাড়া স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মেজবা উদ্দিন, এলজিইডির অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি

চাকরি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন