প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সম্ভাব্য কর্মী ছাঁটাইয়ের বিষয়ে গত সপ্তাহে মেটার একজন কর্মী ব্লাইন্ড অ্যাপে পোস্ট করে জানিয়েছেন। প্রযুক্তিকর্মীদের কাছে ব্লাইন্ড অ্যাপ বেশ জনপ্রিয়। এই প্ল্যাটফর্মে বেনামে পোস্ট করা যায়। তবে এর জন্য কোনো কোম্পানির সঠিক একটি ই–মেইল ঠিকানার দরকার হয়।

মেটার ওই কর্মী পোস্টে লিখেছেন, এই ১৫ শতাংশ কর্মী সম্ভবত কর্মদক্ষতার ওপর নির্বাচন করা হবে। এরপর তাঁদের ছাঁটাই করা হবে। এই পোস্টে মেটার শত শত কর্মী মন্তব্য করেছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মেটার একজন কর্মী বলেছেন, ফেসবুকের কর্মী পর্যালোচনাপ্রক্রিয়ায় যেসব কর্মী ভালো কাজ করেন বা লক্ষ্যমাত্রার একটু কম কাজ করেন তাঁদের সাধারণত ছাঁটাই করা হয় না। আবার অনেকেই নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রার অনেক নিচে কাজ করেন। তাঁদের নতুন কোনো পদে সরিয়ে দেওয়া হয় বা প্রতিষ্ঠান থেকে বাধ্যতামূলক ছুটি দেওয়া হয়। এটাই মূলত গোপনে ছাঁটাইপ্রক্রিয়ার একটি অংশ।

এদিকে গত সপ্তাহে মেটা ঘোষণা দিয়েছে, বিশ্বজুড়ে মন্দার আশঙ্কা প্রকট হওয়ায় এই মুহূর্তে মেটায় কর্মী নিয়োগপ্রক্রিয়া বন্ধ থাকবে।

কর্মীদের সঙ্গে সাপ্তাহিক অফিশিয়াল প্রশ্নোত্তর পর্বে মার্ক জাকারবার্গ বলেন, ‘আমি আশা করেছিলাম, অর্থনৈতিক অবস্থা স্থিতিশীল হবে। কিন্তু এই মুহূর্তে সবকিছু দেখে তেমন মনে হচ্ছে না। এ কারণে আমরা একটু রক্ষণশীলভাবে পরিকল্পনা নিতে চাই।’ তিনি আরও বলেন, মেটা সব কটি টিমের বাজেট কমিয়ে দেবে।

গত জুনে মেটা বলেছিল, তারা চলতি বছর প্রকৌশলী নিয়োগ ৩০ শতাংশ কমিয়ে আনবে।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ ১০ ধনীর তালিকায় নেই ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। বিপুল সম্পদ হারিয়ে তিনি দেশটির শীর্ষ ১০ ধনীর তালিকা থেকে ছিটকে পড়েছেন। মার্কিন সাময়িকী ফোর্বসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ফোর্বস বলছে, ২০১৫ সালের পর এই প্রথম জাকারবার্গ যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ ১০ ধনীর তালিকার বাইরে চলে গেলেন। সম্প্রতি ফোর্বস যুক্তরাষ্ট্রের ৪০০ শীর্ষ ধনীর একটি তালিকা প্রকাশ করেছে। সেই তালিকা অনুযায়ী জাকারবার্গ এখন যুক্তরাষ্ট্রের ১১তম শীর্ষ ধনী।