আজ সকালে অনশনস্থলে প্রথম আলোর সঙ্গে কথা হয় সোনিয়া চৌধুরীর। এ সময় তাঁকে নিস্তেজ অবস্থায় দেখা যায়। কর্মসূচির বিষয়ে জানতে চাইলে ক্ষীণ কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘যতক্ষণ সেন্স আছে, আমি কর্মসূচি চালিয়ে যাব। চিকিৎসার প্রয়োজন হলে এখান থেকেই চিকিৎসা নিতে চাই। তবু প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি, সরকারি চাকরিতে বয়সসীমা ৩৫ করা হোক।’

যতক্ষণ সেন্স আছে, আমি কর্মসূচি চালিয়ে যাব। চিকিৎসার প্রয়োজন হলে এখান থেকেই চিকিৎসা নিতে চাই। তবু প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি, সরকারি চাকরিতে বয়সসীমা ৩৫ করা হোক।
সোনিয়া চৌধুরী, চাকরিতে প্রবেশের বয়স বৃদ্ধির দাবিতে অনশনকারী

পরে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র পরিষদের প্রধান সমন্বয়ক আল কাউসার প্রথম আলোকে বলেন, দুপুরের দিকে অসুস্থ হয়ে পড়লে সোনিয়াকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে। এখনো সিট পাওয়া যায়নি। তবে তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়েছে, চিকিৎসক দেখেছেন।